অবশেষে কাতারে রাষ্ট্রদূত ফেরত পাঠাতে বাধ্য হলো সৌদি আরব

সংগ্রহীত

অবশেষে কাতারে রাষ্ট্রদূত ফেরত পাঠাতে বাধ্য হলো সৌদি আরব

কাতারকে অবরুদ্ধ করার চার বছরের মাথায় দেশটিতে নিজের রাষ্ট্রদূত ফেরত পাঠাতে বাধ্য হয়েছে সৌদি আরব। দোহায় নিযুক্ত সৌদি রাষ্ট্রদূত সম্প্রতি কাতারে ফিরে গেছেন বলে কাতারের সরকারি বার্তা সংস্থা গ্বানা খবর দিয়েছে।

এতে বলা হয়েছে দোহায় নিযুক্ত সৌদি রাষ্ট্রদূত মানসুর বিন খালেদ বিন ফারহান আলে সৌদি গতকাল (সোমবার) কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মুহাম্মাদ বিন আব্দুর রহমান আলে সানির কাছে নিজের পরিচয়পত্র পেশ করেছেন।

এ সময় কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সৌদি রাষ্ট্রদূতের পেশাগত সাফল্য কামনা করেন। তিনি দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক শক্তিশালী করার ক্ষেত্রে দোহার পক্ষ থেকে সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

মানসুর বিন খালেদ বিন ফারহান আলে সৌদ এর আগে ২০১২ সালে স্পেনে সৌদি আরবের বিশেষ দূতের দায়িত্ব পালন করেছেন।

সন্ত্রাসবাদের প্রতি কাতারের কথিত সমর্থনের অভিযোগ তুলে ২০১৭ সালের জুন মাসে সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, বাহরাইন ও মিশর একযোগে দোহার সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করে। সেইসঙ্গে এই চার দেশ জল, স্থল ও আকাশপথে কাতারের ওপর কঠোর অবরোধ আরোপ করে।

সে সময় ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরান কাতারের পাশে দাঁড়ায় এবং অবরোধ ভেঙে কাতারকে নিজের পায়ে দাঁড়াতে সহযোগিতা করে।

২০২০ সালের মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডোনাল্ড ট্রাম্প পরাজিত হওয়ার পর সৌদি আরব কাতারের সঙ্গে উত্তেজনা প্রশমনের উদ্যোগ নেয়।গত জানুয়ারিতে সৌদি আরবের আল-আ’লা শহরে অনুষ্ঠিত পারস্য উপসাগরীয় সহযোগিতা পরিষদের বৈঠকে কাতারকে আমন্ত্রণ জানায় রিয়াদ। ওই বৈঠকে চার বছর পর কাতারের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করতে সম্মত হয় সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, বাহরাইন ও মিশর।