ইরানের যাত্রীবাহী বিমান ভূপাতিত করে ক্ষমা চায়নি যুক্তরাষ্ট্র : জারিফ

সংগ্রহীত

ইরানের যাত্রীবাহী বিমান ভূপাতিত করে ক্ষমা চায়নি যুক্তরাষ্ট্র : জারিফ

ইরানের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনৈতিক সন্ত্রাসবাদের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে সহিংস হামলা চলেছে বলে মন্তব্য করেছেন ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মাদ জাওয়াদ জারিফ। পারস্য উপসাগরের আকাশে মার্কিন রণতরী থেকে নিক্ষিপ্ত ক্ষেপণাস্ত্রের আঘাতে একটি ইরানি যাত্রীবাহী বিমান ভূপাতিত হওয়ার বার্ষিকীতে এক টুইটার বার্তায় একথা বলেন তিনি।

জারিফের টুইটার বার্তায় বলা হয়, ৩৩ বছর আগে ঠিক এই দিনে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইরান এয়ারের ৬৫৫ নম্বর ফ্লাইটটি গুলি করে ভূপাতিত করে এবং এর ২৯০ বেসামরিক আরোহীর সবাইকে হত্যা করে।

তিনি লিখেছেন, সে সময় একজন তরুণ কূটনীতিক হিসেবে এ বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করেছি যে, এই ভয়াবহ হৃদয়বিদারক ঘটনা ঘটানোর পরও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইরানের কাছে ক্ষমা চায়নি। ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, তার দেশের বিরুদ্ধে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সহিংস আচরণ বহু আগে শুরু হয়েছে এবং আজ তা অর্থনৈতিক সন্ত্রাসবাদের আকারে অব্যাহত রয়েছে।

 

১৯৮৮ সালের ৩ জুলাই পারস্য উপসাগরে অবস্থানরত মার্কিন নৌবাহিনীর গাইডেড মিসাইল ক্রুজার ইউএসএস ভিনসেনেস থেকে ক্ষেপণাস্ত্র ছুঁড়ে ইরানের যাত্রীবাহী বিমানটি ধ্বংস করা হয়। বিমানটিতে ২৭৪ জন যাত্রী ও ১৬ ক্রু ছিলেন।

বন্দর আব্বাস থেকে দুবাই যাওয়ার সময় হরমুজ প্রণালীর আকাশে বিমানটিকে ধ্বংস করা হয়। বিমানের ২৯০ আরোহীর মধ্যে ৬৬টি শিশু ও ৫৩ জন নারী ছিলেন। মার্কিন কর্মকর্তারা সে সময় মিথ্যা দাবি করেছিলেন যে, তাদের যুদ্ধজাহাজ ভুল করে ইরানের যাত্রীবাহী বিমান ভূপাতিত করেছে। কিন্তু পরবর্তীতে সমস্ত লাজ-লজ্জার মাথা খেয়ে যুদ্ধজাহাজের ক্যাপ্টেনকে ওই হামলার জন্য পুরস্কৃত করে আমেরিকা। সূত্র: পার্সটুডে।