ইসরায়েলের সঙ্গে ভ্যাকসিন বিনিময় চুক্তি বাতিল করল ফিলিস্তিন

সংগ্রহীত

ইসরায়েলের সঙ্গে ভ্যাকসিন বিনিময় চুক্তি বাতিল করল ফিলিস্তিন
বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সমালোচনার ঝড় উঠে। নেটিজেনরা জানিয়েছিলেন, ইসরায়েলের কাছ থেকে অকেজো ভ্যাকসিন নেওয়া হচ্ছে যা আদৌ কোনো ফল দেবে না।
ইসরায়েলের সঙ্গে ভ্যাকসিন বিনিময়-সংক্রান্ত চুক্তি বাতিলের ঘোষণা দিয়েছে ফিলিস্তিন। আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরা জানায়, ভ্যাকসিনগুলোর মেয়াদ প্রায় শেষের দিকে হওয়ায়, বাতিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছে ফিলিস্তিন।
এর আগে ফিলিস্তিন যখন এই চুক্তি করেছিল, তখনই বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সমালোচনার ঝড় উঠে। নেটিজেনরা জানিয়েছিলেন, ইসরায়েলের কাছ থেকে মেয়াদোত্তীর্ণ ভ্যাকসিন নেওয়ার কারণে তা নিলে করোনা থেকে সুরক্ষা পাওয়া সম্ভব হবে না।
শুক্রবার (১৮ জুন) ফিলিস্তিনের স্বাস্থ্যমন্ত্রী মাই আল কাইলা এবং ফিলিস্তিনি সরকারের মুখপাত্র ইব্রাহিম মেলহিম যৌথ সংবাদ সম্মেলনে জানান, ‘স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের গবেষক দল টিকার প্রথম ব্যাচ পরীক্ষা করেই বুঝে যায় ফাইজারের ৯০ হাজার ডোজ ভ্যাকসিন চুক্তির শর্ত অনুসরণ করে পাঠানো হয়নি। ফাইজার-বায়োএনটেকের ডোজগুলোর মেয়াদ কিছুদিনের মধ্যেই শেষ হয়ে যাবে।’ তিনি আরও বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী মুহাম্মাদ শিতায়হের নির্দেশ দিয়েছেন চুক্তি বাতিল করে ভ্যাকসিনগুলো ফেরত দিতে। আমরা চুক্তি বাতিলের ঘোষণা দিচ্ছি সেই সঙ্গে ইসরায়েল থেকে আসা ভ্যাকসিনগুলো ফেরত দেয়া হচ্ছে।’
এর আগে মেয়াদ শেষ হওয়ার কাছাকাছি ১০ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন ফিলিস্তিনকে দিয়ে বদলে আগামী বছরের শেষ নাগাদ মেয়াদ আছে এমন ভ্যাকসিন নেওয়ার কথা জানায় ইসরায়েল।
এক যৌথ বিবৃতিতে ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী নাফতালি বেনেটের কার্যালয় জানায়, ‘ইসরায়েল ফিলিস্তিনের সঙ্গে একটি চুক্তি করেছে এবং সে অনুযায়ী মেয়াদোত্তীর্ণ হয়ে আসা প্রায় ১০ লাখ ভ্যাকসিন ফিলিস্তিনকে দেওয়া হবে।’
এ ছাড়া চলতি বছরের সেপ্টেম্বর-অক্টোবর নাগাদ ১৪ লাখ ডোজ পর্যন্ত আদান-প্রদান হতে পারে বলে বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়। তবে এতে  ভ্যাকসিনগুলোর মেয়াদ ফুরিয়ে যাওয়ার সময় উল্লেখ করা হয়নি।