উচ্চ মাধ্যমিকে ভর্তি

উচ্চ মাধ্যমিকে ভর্তি

এবার এসএসসি ও সমমান পরীক্ষায় রেকর্ড সংখ্যক শিক্ষার্থী পাশ করা সত্ত্বেও উচ্চ মাধ্যমিক স্তরে অন্তত ৫ লাখ আসন শূন্য থাকবে। এর কারণ পাশ করা শিক্ষার্থীর তুলনায় এ স্তরের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের আসন বেশি। এ অবস্থায় শিক্ষার্থীরা ভর্তি নিয়ে চিন্তামুক্ত থাকবেন, এটাই স্বাভাবিক হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু বাস্তব চিত্রটি ভিন্ন। পছন্দের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তি হতে পারবেন কিনা, এ নিয়ে শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকরা এখন উদ্বিগ্ন। দেশে এত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থাকা সত্ত্বেও উচ্চ মাধ্যমিক স্তরে নামকরা ও ভালোমানের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংখ্যা কম। এ স্তরের শিক্ষার জন্য দেশে হাজার হাজার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থাকলেও শিক্ষার্থীদের পছন্দের তালিকায় শীর্ষে থাকে হাতেগোনা আড়াইশ প্রতিষ্ঠান। দেশে শত শত বেসরকারি পলিটেকনিক থাকলেও শিক্ষার্থীদের পছন্দের তালিকায় শীর্ষে রয়েছে ডজনখানেক প্রতিষ্ঠান। প্রায় সব শিক্ষার্থীকেই ভালোমানের প্রতিষ্ঠানের দিকে ছুটতে দেখা যায়। ফলে ভর্তি নিয়ে এক ধরনের তুমুল প্রতিযোগিতা অপেক্ষা করছে। যেহেতু উচ্চ মাধ্যমিক স্তরে নামকরা ও ভালোমানের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংখ্যা কম, সেহেতু অনেক শিক্ষার্থী তাদের পছন্দের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তির সুযোগ পাবেন না। দেশে এ স্তরের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে মানসম্মত শিক্ষা প্রদানের ব্যবস্থা করা হলে এমন পরিস্থিতি সৃষ্টি হতো না।

জানা গেছে, উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিগ্গির শুরু হবে ভর্তি কার্যক্রম। এ কার্যক্রমে যাতে কোনো রকম জটিলতা সৃষ্টি না হয় সেজন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে হবে। লক্ষ করা যায়, নতুন শিক্ষাবর্ষে এবং নতুন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ‘উন্নয়ন ফি’ নামে অতিরিক্ত টাকা আদায় করা হয়। নিয়মবহির্ভূত এসব অর্থ প্রদান করতে গিয়ে অনেক অভিভাবক দিশেহারা হয়ে পড়েন। এসব অনিয়ম রোধেও কর্তৃপক্ষকে যথাযথ পদক্ষেপ নিতে হবে।