এবারের চলচ্চিত্রে আশার আলো ‘মুখোশ’

এবারের চলচ্চিত্রে আশার আলো ‘মুখোশ’

সিনেমা নিয়ে আলোচনা ছড়া- সবই হচ্ছে চলচ্চিত্রাঙ্গনে। নির্বাচন, আইনি ঝামালে নিয়ে সিনেমাপাড়া বেশ সরব; কিন্তু সিনেমা নেই, নেই সিনেমা হলে দর্শকের ভিড়। তবে দাপুটে অভিনেতা মোশাররফ করিম, আলোচিত চিত্রনায়িকা পরীমনি আর নতুন প্রজন্মের ব্যস্ততম চিত্রনায়ক জিয়াউল রোশান অভিনীত ‘মুখোশ’ চলচ্চিত্র মুক্তির পর আশার আলো দেখা যাচ্ছে বলে মন্তুব্য করেছেন চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টরা।

তাদের ভাষায়- ‘চলচ্চিত্রে আলোচনা হবে ভালো সিনেমা নির্মাণ নিয়ে। সমালোচনা হবে সিনেমা খারাপ হলে; কিন্তু আমাদের এখানে এখন হচ্ছে উল্টো! সিনেমা মুক্তি পাচ্ছে না, দর্শক হলে যাচ্ছে না, সেটা নিয়ে কারও মাথাব্যথা নেই! সবাই ব্যস্ত নির্বাচন আর চেয়ারে বসা নিয়ে। তবে মুখোশ মুক্তির পর মনে হচ্ছে দর্শক হলে আসা শুরু করেছেন। ভালো ছবির যে গ্রহণযোগ্যতা এখনো আছে, সেটি এই ধরনের ছবি মুক্তির পর বোঝা যায়।’

এই ছবির মাধ্যমে প্রায় তিন বছর পর দেশের সিনেমা হলে মুক্তি পেয়েছে মোশাররফ করিম অভিনীত ছবি। আলোচিত নায়িকা পরীমনিকে সর্বশেষ দেখা গেছে ‘স্ফুলিঙ্গ’ ছবিতে। সেটি মুক্তির পর ব্যক্তিগত জীবনের নানা সংকটে খবরের শিরোনাম হন তিনি। মুখোশ-এ টেলিভিশন ও চলচ্চিত্রের দুই অভিনয়শিল্পীকে একসঙ্গে দেখছেন দর্শক। তরুণ পরিচালক ইফতেখার শুভ তাদের সঙ্গে রেখেছেন অভিনেতা জিয়াউল রোশানকে। ঢাকাসহ দেশের ৩৮ প্রেক্ষাগৃহে শুক্রবার মুক্তি পেয়েছে মুখোশ।

মুক্তির আগে প্রিমিয়ার শো শেষে মোশাররফ করিম সাংবাদিকদের বলেন, ‘গল্পটি ভালো, সে কারণেই দর্শক সিনেমাটি দেখবেন। আমি ভীষণ আশাবাদী।’

এই চলচ্চিত্রে মোশাররফ করিম অভিনয় করেছেন ইব্রাহিম খালেদি নামের এক লেখকের চরিত্রে। সিনেমার মূল রহস্য তাকে ঘিরে, যে রহস্য উন্মোচনের জন্য গল্পের শেষ পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। পরীমনি সোহানা নামে এক সংবাদকর্মীর চরিত্রে অভিনয় করেছেন। মূলধারার বাণিজ্যিক চলচ্চিত্রের বাইরে গিয়ে এমন একটি চরিত্রে অভিনয়ের অভিজ্ঞতা দারুণ বলে জানালেন তিনি। এর আগে একবারই গিয়াস উদ্দিন সেলিমের ওয়েব ফিল্ম প্রীতিতে ক্রাইম রিপোর্টার চরিত্রে অভিনয় করেন তিনি। মুখোশ সিনেমায় দ্বিতীয়বার তাকে ক্রাইম রিপোর্টার চরিত্রে দেখা যাচ্ছে। তবে দুটিতে কাজ করার অভিজ্ঞতা দুরকম বলে জানালেন পরীমনি।

তিনি বলেন, ‘আমার পুরো জীবনে বিনোদন সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা হয়েছে এবং হবে। গত বছর ক্রাইম রিপোর্টারদের সঙ্গে অনেক কথা হয়। এই ছবির শুটিং যদি এর পর হতো তা হলে আমার চরিত্রটা ফুটিয়ে তোলায় অন্য রকম হতেও পারত। কিছুটা আফসোস রয়ে গেল আরকি। এটাও ঠিক, এই জীবনে সবকিছু পূর্ণ হতেও নেই।’

চলচ্চিত্রে একজন সুপারস্টার চরিত্রে অভিনয় করেছেন রোশান। তিনি বলেন, ‘যেদিন প্রথম ছবিটির গল্প নিয়ে বসেছিলাম, সেদিনই বুঝেছিলাম ভালো কিছু হবে। এখন দর্শকের প্রতিক্রিয়া দেখে তা সত্যি মনে হয়েছে।’ এর আগে পরীর সঙ্গে ‘রক্ত’ ছবিতে অভিনয় করে রোশানের অভিষেক হয়েছিলেন ঢালিউডে। পরীমনি ছাড়াও মুখোশের গল্প শুনে, নিজের চরিত্রটা জেনে ছবিতে অভিনয়ের আগ্রহ বেড়েছিল রোশানের।

তিনি বলেন, ‘মোশাররফ ভাই আমার ভীষণ প্রিয়। আমরা যাদের দেখে অভিনয় শিখি, মোশাররফ ভাই তাদের অন্যতম। প্রস্তাব পেয়ে প্রথমেই ভাবলাম, এমন বাঘা বাঘা অভিনয়শিল্পীকে পরিচালক যখন রাজি করাতে পেরেছেন, সেখানে আমার অবশ্যই থাকা উচিত।’

পরিচালক ইফতেখার শুভর প্রথম ছবি এটি। নিজের লেখা উপন্যাস ‘পেজ নাম্বার ফোরটি ফোর’ অবলম্বনে নির্মাণ করেছেন ‘মুখোশ’। শুভ বলেন, ‘গল্পের জোর ছিল বলেই এই অভিনয়শিল্পীরা রাজি হয়েছেন।’ “আমি মোশাররফ ভাইকে জিজ্ঞেসও করেছি, আপনি তো বেছে বেছে ছবি করেন। আমার এই ছবি করতে রাজি হলেন কেন? বলেছেন, ‘তোমার গল্পটা পছন্দ হয়েছে। গল্পের জোর না থাকলে আমি হয়তো রাজি হতাম না।’ প্রায় সবাইকেই শুটিংয়ের বিভিন্ন সময় জিজ্ঞাসা করেছি তারা রাজি হলেন কেন। সবাই প্রথমত আমার গল্পের প্রশংসা করেছেন”- বলেন শুভ।

যারা এখনো ছবিটি দেখেননি বা ছবির টাইটেল গান বা ট্রেলার দেখেছেন তাদের উদ্দেশে শুভ বলেন, ‘হলফ করে বলতে পারি দর্শক পরতে পরতে ধাক্কা খাবেন। কোনো চরিত্র গল্পে চাপিয়ে দিতে চাইনি। গল্পের মোড়ে মোড়ে এই চরিত্রগুলো এসেছে। অভিনেতারা সেটা দায়িত্ব নিয়ে পরিবেশন করেছেন। দর্শকদের ছবিটি দেখার অনুরোধ করছি। খারাপ লাগলেও যেন সেটা আমাকে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে জানান। চলচ্চিত্র ভালোবাসি বলেই এমন বৈরী সময়ে এমন একটা বড় বাজেটের ছবি নির্মাণ করেছি। সরকারি অনুদানের পরও ছবিটি নির্মাণে আমার প্রায় ৫০ লাখ টাকা খরচ করতে হয়েছে। দর্শক দেখলেই আমার শ্রম ও অর্থের প্রতিদান পাব আশা করি। এটাই শেষ নয়, এই ছবির অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে সামনে আরও ছবি বানাব।’

২০১৯-২০ অর্থবছরে সরকারি অনুদান পায় মুখোশ। ব্যাচেলর ডট কম প্রোডাকশনের প্রযোজনায় এই চলচ্চিত্রের শুটিং হয়েছে সিলেট, টাঙ্গাইল, এফডিসি, বইমেলা, পদ্মার চর, সাভারে। ছবিতে আরও অভিনয় করেছেন ফারুক আহম্মেদ, প্রাণ রায়, মেহের আফরোজ রাফা, রাশেদ আল মামুনসহ অনেকে।