এবার আফগান এমপিরা চটেছেন মার্কিন বাহিনীর ওপর

সংগ্রহীত

এবার আফগান এমপিরা চটেছেন মার্কিন বাহিনীর ওপর

আফগানিস্তানের সাধারণ জনগণ ও দেশটির সরকারি লোকজনকে বিপদে ফেলে অনেকটা গোপনে দেশটি ত্যাগ করেছে মার্কিন বাহিনী।

আফগান সংসদে গত সোমবার এক সম্পূরক আলোচনায় দেশটির এমপিরা যুক্তরাষ্ট্রের ওপর এ ক্ষোভ ঝাড়েন।

তারা বলেন, তথাকথিত সন্ত্রাস দমনের নামে ২০ বছর আগে মার্কিন নেতৃত্বাধীন ন্যাটো বাহিনী ঘাঁটি গাড়ে।

কিন্তু সন্ত্রাস নির্মূলের নামে তারা দেশটির হাজার হাজার মানুষকে হত্যা করেছে। দুই দশক ধরে তাদের চাপিয়ে দেওয়া যুদ্ধের কারণে আফগানিস্তানের অর্থনীতি ধ্বংস হয়ে গেছে।

এখন তারা আফগানিস্তানকে বিপদে ফেলে পালিয়ে গেছে। এদিকে বিদেশি সেনাদের আফগান ত্যাগের খবরে বেপরোয়া হয়ে উঠেছেন তালেবান যুদ্ধারা।

তারা এরই মধ্যে দেশটির দেড় শতাধিক জেলা দখল করে নিয়েছে। এ অবস্থা চলতে থাকলে গোটা আফগানিস্তান দখল করে নিতে তাদের খুব বেশি সময় লাগবে না বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেন আফগান এমপিরা।

মো. সিদ্দিক নামে এক আফগান এমপি সংসদে বলেন, মার্কিন-আফগান দ্বিপক্ষীয় নিরাপত্তা চুক্তি আসলে যুক্তরাষ্ট্রের একটি ধোঁকা ছিল।এভাবে তাদের চলে যাওয়াটা আসলে একটি দায়িত্বজ্ঞানহীন কাজ। আমরা তাদের কাছে মোটেও তা আশা করিনি।

২০১৪ সালের সেপ্টেম্বরে মার্কিন নেতৃত্বাধীন ন্যাটো বাহিনী আফগানিস্তানের সঙ্গে ওই নিরাপত্তা চুক্তি করেছিল।

আমেরিকান সৈন্যরা গত শুক্রবার মধ্যরাতে আফগানিস্তানের বাগরামে তাদের গুরুত্বপূর্ণ সামরিক বিমানঘাঁটি ছেড়ে চলে গেছে।

রাতের অন্ধকারে আফগান কর্তৃপক্ষকে কিছু না জানিয়েই তারা চলে গেছে বলে জানান ওই ঘাঁটির নতুন কমান্ডার জেনারেল আসাদুল্লাহ কোহিস্তানি।

তিনি বলেন, আমেরিকানরা শুক্রবার রাত ৩টার সময় সেখান থেকে চলে যায়। আফগান সামরিক বাহিনী এর কয়েক ঘণ্টা পর তা জানতে পারে।

বাগরাম বিমানঘাঁটিতে একটা কারাগারও আছে এবং সেই কারাগারে এখনও বন্দি রয়েছে পাঁচ হাজারের মতো তালেবান যোদ্ধা।

মার্কিন সৈন্য প্রত্যাহারের খবরে আফগানিস্তানের বিভিন্ন এলাকার নিয়ন্ত্রণ দ্রুততার সঙ্গে গ্রহণ করছে তালেবান।

কোনো কোনো এলাকায় তালেবান আসার খবরে ভয়ে আফগান সেনারা পার্শ্ববর্তী দেশে পালিয়ে গেছেন।