এসপি মুরাদ আলীর নির্দেশে বিএনপির সমাবেশে ১২০০ রাউন্ড গুলি

এসপি মুরাদ আলীর নির্দেশে বিএনপির সমাবেশে ১২০০ রাউন্ড গুলি

এসপি মুরাদ আলীর নির্দেশে ওসি নাজমুল হাসান, মাসুক আলী সম্পূর্ণ বেআইনিভাবে শটগানে প্রায় ১২০০ রাউন্ড গুলি ছুড়েছে বলে দাবি করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

আইনত সারাবিশ্বে শটগানের গুলি ব্যবহার নিষিদ্ধ করা হয়েছে উল্লেখ করে বিএনপি মহাসচিব বলেন,  দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও তাকে বিদেশে পাঠানোর দাবিতে ২২ ডিসেম্বর সারা দেশে বিভাগীয় পর্যায়ে সাত জেলায় আমাদের সমাবেশের কর্মসূচি ছিল। এর মধ্যে ছয়টিতে মোটামুটি শান্তিপূর্ণভাবে কর্মসূচি করা গেছে। হবিগঞ্জে পুলিশ অতর্কিতে হামলা চালিয়েছে। এসপি মুরাদ আলীর নির্দেশে ওসি নাজমুল হাসান, মাসুক আলী সম্পূর্ণ বেআইনিভাবে শটগানে প্রায় ১২০০ রাউন্ড গুলি ছুড়েছে। আইনত সারাবিশ্বে শটগানের গুলি ব্যবহার নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে মির্জা ফখরুল এসব কথা বলেন। গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলন হয়।

মির্জা ফখরুল বলেন, হবিগঞ্জের সমাবেশে পুলিশের নির্বিচারে লাঠিচার্জ ও গুলিবর্ষণে বিএনপির ৩০০ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। এর মধ্যে ১০ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। একজনের চোখ নষ্ট হয়ে গেছে।

‘এতে আমাদের হবিগঞ্জের জেলা যুবদলের যুগ্ম সম্পাদক শফিকুর ইসলাম সেতু, জেলা ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক শাহ রাজীব আহসান রিংগন, যুগ্ম সম্পাদক সাইদুর রহমান মারাত্মকভাবে আহত হয়েছেন। সাইদুর রহমানের চোখ নষ্ট হয়ে গেছে। এ ছাড়া বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আবদুল মতিন, শেখ রাসেল, গোলাম বাকী চৌধুরী রাজীব, মানিক মিয়া, তৌ্হিদুর রহমান অনি, বেলাল আহমেদ বাবু, আসিফুল ইসলাম ইমন, মুজাক্কির ইমন, গৌর চন্দ্র দাশ, মোশায়েদ আলমসহ অর্থ শতাধিক নেতাকর্মী। গ্রেফতার করা হয়েছে ছাত্রদলসহ বিভিন্ন অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের।