ওমিক্রনের  আরও দুই লক্ষণ শনাক্ত

ওমিক্রনের  আরও দুই লক্ষণ শনাক্ত
গলা খুশখুশ ছাড়া কাশি, হালকা জ্বর, ক্লান্তি- এসবই হলো ওমিক্রনের প্রাথমিক লক্ষণ বলে জানিয়েছিলেন বিজ্ঞানীরা। এছাড়াও মাথাব্যথা, শরীরে ব্যথা, গলা ব্যথা, গলার স্বরে পরিবর্তন সহ নানা ধরনের লক্ষণ শনাক্ত হয়েছে। তবে স্বাদ-গন্ধ চলে যাওয়া ও শ্বাসকষ্টের ঘটনা কিছু ক্ষেত্রে ঘটতে দেখা গেছে।

এরই মধ্যে ওমিক্রনের নতুন ২ উপসর্গ দেখা দিয়েছে বলে জানিয়েছে টাইমস অব ইন্ডিয়া। এক খবরে বলা হয়েছে,  জোয়ে কোভিড স্টাডি অ্যাপ ওমিক্রনের দুটি অজানা উপসর্গকে সামনে এনেছে। এই দুটি উপসর্গ এতদিন কারও জানা ছিল না। উপসর্গ দুটি হলো- বমি হওয়া ও ক্ষুধা কমে যাওয়া।

এই অ্যাপের প্রধান বলছেন, বর্তমানে কোভিড আক্রান্ত রোগীর মধ্যে এ দুটি লক্ষণ বেশি দেখা দিচ্ছে। যার মধ্যে করোনা টিকা নেওয়া ব্যক্তিরাই বেশি।

বিশেষজ্ঞরা পরামর্শ দিচ্ছেন, এসব লক্ষণ দেখা দিলে যত দ্রুত সম্ভব চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। তিনি টেস্ট করতে বললে দ্রুত টেস্ট করান। রোগ চিহ্নিত করা সম্ভব হলেই এই রোগ থেকে মিলতে পারে মুক্তি।

এদিকে রোববার (২ জানুয়ারি) দুপুরে কোভিড-১৯ পরিস্থিতি নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতরের ভার্চুয়াল স্বাস্থ্য বুলেটিনে সংস্থাটির মুখপাত্র অধ্যাপক মো. রোবেদ আমিন বলেন, করোনার দক্ষিণ আফ্রিকান ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রনে পুরুষদের তুলনায় নারীরা বেশি আক্রান্ত হচ্ছে। দক্ষিণ আফ্রিকাসহ বিশ্বের যেসব জায়গায় ওমিক্রন ছড়িয়ে পড়ছে, সেসব জায়গার চিত্র ও গবেষণায় এই তথ্য জানা গেছে বলে সংস্থাটি জানিয়েছে।

বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত ১০ জনের শরীরে ওমিক্রন শনাক্তের তথ্য পাওয়া গেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, একটা সময় আমরা বলেছিলাম পুরুষরা অনেক বেশি সংখ্যক আক্রান্ত হচ্ছেন। দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে যে তথ্য এসেছে তাতে ওমিক্রনে পুরুষের চেয়ে নারীর আক্রান্ত হওয়ার সংখ্যা বেশি। একইসঙ্গে তরুণদের আক্রান্ত হওয়ার সংখ্যা বেশি। এক সময় বলা হতো তরুণদের ইমিউনিটি বেশি তারা আক্রান্ত হবেন না। ওমিক্রন এসে সেই ধারণাকে ভুল প্রমাণিত করেছে। শিশুদেরও আমরা আক্রান্ত হতে দেখেছি দক্ষিণ আফ্রিকা ও ইউরোপে।
প্রসঙ্গত, গত ২৪ নভেম্বর দক্ষিণ আফ্রিকায় এই ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত করা হয়। যুক্তরাজ্যের একটি গবেষণা অনুযায়ী, এই ভ্যারিয়েন্ট প্রতিরোধে বুস্টার ডোজ কার্যকর। কিন্তু বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এর বিরুদ্ধে গিয়ে জানিয়েছে, বুস্টার ডোজ মহামারিকে আরও বেশি ত্বরান্বিত করবে। এখন পর্যন্ত বিশ্বের ১০৬টি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে করোনার ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন। বিশেষজ্ঞদের মতে, ওমিক্রন ডেল্টার তুলনায় কম ঝুঁকিপূর্ণ হলেও বেশিই সংক্রামক।