কাজী হাবিবুল আউয়াল চরম বিতর্কিত,কবির রিজভী

কাজী হাবিবুল আউয়াল চরম বিতর্কিত,কবির রিজভী
প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল ‘চরম বিতর্কিত’ সাবেক আমলা বলে দাবি করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।
সোমবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ দাবি করেন।
রিজভী আহমেদ বলেন, কাজী হাবিবুল আউয়াল এখন প্রভুভক্তির চরম পরাকাষ্ঠা দেখানোর দৌড় শুরু করবেন। চরম বিতর্কিত সাবেক আমলা কাজী হাবিবুল আউয়াল শেখ হাসিনার বড় পছন্দের। যখনই কোনো সাংবিধানিক পদে নিয়োগের সময় এসেছে, প্রতিটি ক্ষেত্রেই কাজী আউয়ালের নাম শেখ হাসিনা বিবেচনা করেছেন। তার কারণ হলো, আউয়াল একজন কট্টর আওয়ামী লীগার।
হাবিবুল আউয়ালের পুরো পরিবার আওয়ামী-বাকশালী রাজনীতির সঙ্গে জড়িত দাবি করে বিএনপির এই নেতা বলেন, কাজী হাবিবুল আউয়াল আইন মন্ত্রণালয়ের লিগ্যাল অ্যান্ড ড্রাফটিং শাখার অতিরিক্ত সচিব ছিলেন। এটি প্রশাসনিক ক্যাডারের একটি পদ। এই পদে থেকে আইন মন্ত্রণালয়ের সচিব পদে নিয়োগ পাওয়ার নিয়ম না থাকলেও শেখ হাসিনার বিশেষ অনুগ্রহে সেটি লাভ করেন। আইন সচিব একটি বিচার বিভাগীয় পদ। এ কারণে পদোন্নতি বিধিমালা-২০০২ অনুযায়ী হাইকোর্ট বিভাগ ও আপিল বিভাগ কাজী হাবিবুল আউয়ালের নিয়োগ অবৈধ বলে রায় দেয়।
তিনি বলেন, কাজী হাবিবুল আউয়ালকে আইন সচিব নিয়োগ দেওয়ার পরই আদালতের বিচারকসহ বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তারা তার অপসারণ দাবিতে আন্দোলন শুরু করেন। জুডিশিয়াল সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের অভিযোগ ছিল- বিচারকদের স্বার্থ রক্ষা না করা, বিচারকদের স্বতন্ত্র বেতন-ভাতা দিতে সরকারকে বাধা দেওয়াসহ যখন-তখন বিচারকদের বদলির মাধ্যমে হয়রানি করতেন হাবিবুল আউয়াল। এর আগে হাবিবুল আউয়ালের বিরুদ্ধে অভিযোগ করতে গিয়ে বিচারকরা পুলিশের দ্বারা চরম লাঞ্ছিত হন। এর পেছনে হাবিবুল আউয়ালের ষড়যন্ত্র ছিল বলে বিচারকরা অভিযোগ করেন। এ ঘটনার জন্য জুডিশিয়াল সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও মহাসচিবকে তখন বাধ্যতামূলক অবসর দেওয়া হয়।
রিজভী বলেন, বিচারকদের অভিযোগ হাবিবুল আউয়াল এই বাধ্যতামূলক অবসরের প্রস্তাবে রাষ্ট্রপতির স্বাক্ষর করান ও প্রজ্ঞাপন জারি করেন। এ ঘটনায় সারাদেশের বিচারকরা ক্ষুব্ধ হয়ে উঠলে দুই বিচারকের বাধ্যতামূলক অবসরের আদেশ প্রত্যাহার করতে বাধ্য হন রাষ্ট্রপতি। এ বিষয়ে সংসদীয় কমিটি হাবিবুল আউয়ালকে তলব করলে তিনি সংসদীয় কমিটির কাছে সমস্ত দায়দায়িত্ব স্বীকার করে নেন ও দায় নিয়ে ক্ষমা চান।
ওই ঘটনার পর তিনি নিশিরাতের সরকারের ঘনিষ্ঠতা ও বিশ্বস্ততার প্রমাণ দিয়ে একের পর এক ধর্ম সচিব, সংসদ সচিবালয়ের সচিব, প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব এবং দ্রুত পদোন্নতি পেয়ে জ্যেষ্ঠ সচিব হন। অবসরে যাওয়ার আগেই বিশেষ ব্যবস্থায় পিআরএল বাতিল করে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব হিসেবে তাকে চুক্তিতে নিয়োগ দেয় সরকার। ওই চুক্তির মেয়াদ আর শেষ হয় না। বছরের পর বছর বাড়তেই থাকে।