কুষ্টিয়ায় দাপিয়ে বেড়াচ্ছে বেপড়োয়া ড্রাম ট্রাক, ৬ দিনে ৯ জনেের মৃত্যু

কুষ্টিয়ায় দাপিয়ে বেড়াচ্ছে বেপড়োয়া ড্রাম ট্রাক, ৬ দিনে ৯ জনেের মৃত্যু

বালির খনি খ্যাত কুষ্টিয়ায় বালি পরিবহনের জন্য ব্যবহৃত বেপরোয়া ড্রাম ট্রাকের ধাক্কায় গত ৬ দিনে ৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। একের পর এক মৃত্যুর ঘটনা ঘটলেও প্রশাসন এখনও পর্যন্ত দৃশ্যমান কোন পদক্ষেপ গ্রহন করেনি। প্রতিদিন ড্রাম ট্রাকের ধাক্কায় মৃত্যুর ঘটনায় আতংকিত হয়ে পড়েছে এখানকার জনপদ। রেজিষ্ট্রেশন বিহীন ড্রাম ট্রাক ও অদক্ষ চালক এসব দূর্ঘটনার জন্য দায়ী বলে মনে করছে সচেতন মহল।

গতকাল শনিবার (১৫ জানুয়ারি) বেলা ১১টার দিকে কুষ্টিয়া সদর উপজেলার বিত্তিপাড়া এলাকায় কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহ সড়কে কুষ্টিয়াগামী দ্রুতগতির একটি ড্রাম ট্রাক একটি যাত্রীবাহী ভ্যানের পেছন থেকে ধাক্কা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই উসমান নামের একজনের মৃত্যু হয় এবং হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ছলেমান আলী নামের আরেক ব্যক্তির মৃত্যু হয়।

শুক্রবার (১৪ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় কুষ্টিয়া-রাজবাড়ী আঞ্চলিক মহাসড়কের লাহিনী বটতলা শাহপাড়া এলাকায় বালু বোঝায় ড্রাম ট্রাকের ধাক্কায় অনিক নামের এক শিশু নিহত হয়। সে একই এলাকার আক্কার শাহের ছেলে।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার বিকেলে অনিক তার বাড়ির সামনে সড়কের পাশে দাঁড়িয়ে ছিল। এমন সময় কুষ্টিয়া বড়বাজার থেকে ছেড়ে আসা ড্রাম ট্রাকটি লাহিনী বটতলা শাহপাড়া এলাকায় শিশুটিকে ধাক্কা দেয়। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় স্থানীয়রা শিশুটিকে উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

এর আগে ৯ জানুয়ারি রোববার কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলায় ড্রাম ট্রাকের ধাক্কায় দুই মোটরসাইকেল আরোহীর মৃত্যু হয়েছে। রাত সাড়ে ১০টার দিকে উপজেলার তারাগুনিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন ফারুক চেয়ারম্যানের বাড়ির সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত দুজন একই মোটরসাইকেলের যাত্রী। তারা হলেন দৌলতপুর উপজেলার কৈপাল গ্রামের মৃত হযরত আলীর ছেলে বিদ্যুৎ (৩৭) ও একই এলাকার মৃত ফেরুর ছেলে রাজন (৩৬)।

১০ জানুয়ারি সোমবার কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহ মহাসড়কের বটতৈল দক্ষিণপাড়া নামের স্থানে দ্রুতগামী বালুভর্তি ট্রাকের ধাক্কায় প্রাণ গেছে ৩ নারীসহ ৪জনের। ভোর সাড়ে ৫টার দিকে এই মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্র জানিয়েছে ভোর সাড়ে ৫টার দিকে ভ্যানযোগে চার যাত্রী কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহ মহাসড়কের মন্ডল হোটেলের সামনে পৌঁছলে ঝিনাইদহগামী দ্রুতগতির ড্রাম ট্রাক ধাক্কা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই মারা যান ওই ভ্যানে থাকা ৪যাত্রী।

নিহতরা হলেন কুষ্টিয়া সদর উপজেলার স্বস্তিপুর এলাকার হোজেল হোসেনের ছেলে ভ্যানচালক মুক্তার হোসেন, একই এলাকার আজিজুল হকের স্ত্রী জেসমিন আক্তার, আলামপুর হালদাপাড়া এলাকার ভাদু মোল্লার মেয়ে রোজিনা খাতুন ও মনোরঞ্জনের স্ত্রী স্বপ্না খাতুন। এ সময় গুরুতর আহত-এক নারীকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় নেয়া হয় কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে। পুলিশ ট্রাকটিকে আটক করতে সক্ষম হলেও ট্রাকের চালক পালিয়ে যায়।