কুড়িগ্রামে মা ও ৫ মাসের শিশুকে গলা কেটে হত্যা

কুড়িগ্রামে মা ও ৫ মাসের শিশুকে গলা কেটে হত্যা

কুড়িগ্রামের রৌমারীতে মা ও তার পাঁচ মাসের শিশুসন্তানকে গলা কেটে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। ঘটনাস্থল থেকে গতকাল দুপুরে শিশু হাবিবের গলা কাটা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। মা হাফসা আকতারকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় রৌমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। পথে তার মৃত্যু হয়েছে। এদিকে কুষ্টিয়ায় এক যুবকের বিরুদ্ধে চাচাতো ভাইকে হত্যা এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় স্ত্রীর বিরুদ্ধে প্রবাসী স্বামীকে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

কুড়িগ্রাম : রৌমারী সদর ইউনিয়নের নতুন বন্দর হাজিপাড়া এলাকায় ধানক্ষেত থেকে শিশু হাবিবের গলা কাটা লাশ উদ্ধার করে পুলিশ, মা হাফসা আকতারকে গলা কাটা অবস্থায় উদ্ধার করে রৌমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। সেখান থেকে তাকে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হচ্ছিল। পথেই তার মৃত্যু হয়। হাফসা নতুন বন্দর এলাকার মো. সাহেব আলীর স্ত্রী।

পুলিশসূত্রে জানা যায়, প্রচণ্ড বৃষ্টির মধ্যে নতুন বন্দর হাজিপাড়া এলাকায় একটি পুকুরপাড়ের পূর্বপাশের ধানক্ষেত থেকে শব্দ শুনে স্থানীয়রা ঘটনাস্থলে গিয়ে শিশুটির লাশ ও পাশেই শিশুটির মা হাফসাকে গলা কাটা ও অচেতন অবস্থায় দেখতে পান। স্থানীয়দের সহায়তায় পরিবারের লোকজন হাফসাকে উদ্ধার করে রৌমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালে ভর্তি করায়।

হাফসা আকতারের ভাই হাসিনুর রহমান জানান, তার বোনজামাই ঢাকায় কাজ করেন। এ ঘটনার কথা শুনে তিনি ঢাকা থেকে বাড়ির উদ্দেশে রওনা দিয়েছেন।

রৌমারী থানার ওসি মোন্তাছের বিল্লাহ বলেন, ঘটনার ব্যাপারে পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া : দাম্পত্য কলহের জেরে প্রবাসী তাজুল ইসলামকে হত্যার অভিযোগ উঠেছে তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে। গত শুক্রবার মধ্যরাতে সদর উপজেলার বাসুদেব ইউনিয়নের ঘাটিয়ারা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। তাজুল ইসলাম ওই এলাকার এমরান মোল্লার ছেলে। এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী সামসিয়া আক্তার তোহাকে (৪৫) আটক করেছে পুলিশ। সদর মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সোহরাব আল হোসাইন জানান, শুক্রবার রাতে ঘরের জানালা বন্ধ করা নিয়ে তাজুলের সঙ্গে তোহার বাগ্বিতণ্ডা হয়। একপর্যায়ে তোহাকে থাপ্পড় দেন তাজুল। এ সময় তাজুলকে ধাক্কা দিয়ে টেবিলের ওপর ফেলে দেন তোহা। এতে মাথায় আঘাত পান তাজুল। জেলা সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে সেখানে তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় নিহতের বাবা এমরান মোল্লা বাদী হয়ে সদর মডেল থানায় মামলা করেছেন।

কুষ্টিয়া : সদর উপজেলায় এক যুবককে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। শনিবার সকালে উপজেলার ঝাউদিয়া ইউনিয়নের ঝাউদিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় নিহতের চাচতো ভাইয়ের জড়িত থাকার অভিযোগ উঠেছে। নিহত যুবকের নাম জসিম উদ্দীন (৩৮)। তিনি ঝাউদিয়া গ্রামের মৃত পাথার উদ্দীনের ছেলে। জসিমের সঙ্গে তার চাচাতো ভাই লালনের একটি বাঁশঝাড় নিয়ে বিরোধ চলছিল। গতকাল সকালে বাঁশ কাটা নিয়ে লালন আর জসিমের মধ্যে ঝগড়া হয়। একপর্যায়ে লালনের লোকজন জসিমের ওপর হামলা করেন। লালনের হাতে থাকা ফলার আঘাতে জসিম গুরুতর জখম হন। কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।