গাজা পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করতে মিশরে হামাসের প্রতিনিধিদল

সংগ্রহীত

গাজা পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করতে মিশরে হামাসের প্রতিনিধিদল

যুদ্ধোত্তর গাজা পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করার জন্য মিশরের রাজধানী কায়রো সফরে গেছে ফিলিস্তিনের ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলন হামাসের একটি প্রতিনিধিদল।

গতকাল মঙ্গলবার হামাসের পলিটিক্যাল ব্যুরোর প্রধান ইসমাইল হানিয়ার নেতৃত্বাধীন শক্তিশালী প্রতিনিধিদলটি কায়রো পৌঁছেছে। হামাস এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, এই প্রতিনিধিদলে রয়েছেন সংগঠনের উপ প্রধান মুসা আবু মারজুক এবং হানিয়ার সহকারী সালেহ আল-আরুরিসহ আরো পাঁচ সিনিয়ার নেতা।

প্রতিনিধিদলটি গাজা উপত্যকার ওপর থেকে ইসরাইলি অবরোধ প্রত্যাহারের উপায়সহ অন্যান্য বিষয়ে মিশরের কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা করবেন। ইহুদিবাদী ইসরাইলের সঙ্গে মিশরের স্বাভাবিক কূটনৈতিক সম্পর্ক রয়েছে এবং সাম্প্রতিক যুদ্ধবিরতিতে কায়রো তেল আবিব ও গাজার মধ্যে মধ্যস্থতাকারীর ভূমিকা পালন করেছে।

গেল মে মাসের গোড়ার দিকে আল-আকসা মসজিদে মুসল্লিদের ওপর ইসরাইলি সেনাদের ব্যাপক দমন অভিযানের প্রতিবাদে গাজা উপত্যকা থেকে ইসরাইল অভিমুখে রকেট নিক্ষেপ শুরু করে প্রতিরোধ আন্দোলনগুলো। দখলদার ইসরাইল টানা ১২ দিন ধরে গাজা উপত্যকার বেসামরিক অবস্থানে বিমান হামলা চালিয়ে তার জবাব দেয়।

ইসরাইল বিমান হামলা শুরু করার সঙ্গে সঙ্গে গাজা থেকে ইসরাইলের বিভিন্ন শহর লক্ষ্য করে হাজার হাজার রকেট নিক্ষেপ করতে থাকে হামাস ও ইসলামি জিহাদ আন্দোলনসহ অন্যান্য প্রতিরোধ সংগঠন। তারা এই ১২ দিনে জেরুজালেম, তেল আবিব এমনকি দূরবর্তী হাইফা শহরে চার হাজারের বেশি রকেট নিক্ষেপ করে ইহুদিবাদীদের অন্তরে কাঁপন ধরিয়ে দেয়।ফিলিস্তিনিদের রকেটের পাল্লা ও নিখুঁতভাবে আঘাত হানার ক্ষমতা দেখে তেল আবিব ১২ দিনের মাথায় যুদ্ধবিরতি মেনে নিতে বাধ্য হয়।