চুরি করতে দেখে ফেলায় সেনাবাহিনীর সার্জেন্টককে কুপিয়ে হত্যা চেষ্টা


ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর শহরের দক্ষিন মৌড়াইল এলাকায়  অবসরপ্রাপ্ত সেনাবাহিনীর সার্জেন্টককে কুপিয়ে হত্যা চেষ্টা করা হয়েছে। চুরি করতে দেখে ফেলায় স্থানীয় তিন যুবক এই ঘটনা ঘটায় বলে পরিবার ও প্রতিবেশীর দাবি।  

এ ব্যাপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানায় একটি মামলা হয়েছে।

মামলার বাদী আহত সার্জেন্ট রফিকুল ইসলামের ছেলে রাকিবুল ইসলাম অপার বাংলা নিউজকে বলেন, আমাদের এলাকার চিহ্নিত মাদকাসক্ত জহির, সালেহ, শাহিন নামের তিনজন ১৮ এপ্রিল ভোর বেলা আমাদের বাসা থেকে প্রায় ২লক্ষ টাকার মালামাল চুরি করে নিয়ে যাওয়ার সময় আমার বাবা ফজরের নামাজ পড়ে ফেরার পথে তাদের দেখে ফেলে। আমার বাবাকে দেখে তখন তারা পালিয়ে যায়। পরে এই বিষয়টি আমরা এলাকার কাউন্সিলর কে জানায়। গত ২৩ এপ্রিল ইফতার শেষে মাগরিবের নামাজ পড়ে বাড়ি ফেরার পথে,আমাদের বাড়ির গেইটের সামনে চুরি করা ওই তিনজন সহ ৫-৬ জন মিলে আমার বাবাকে হত্যা করার উদ্দেশ্যে রাম দাঁ দিয়া কোপানো শুরু করে। আমি বাবার চিৎকার শুনে বাবাকে বাঁচাতে এগিয়ে গেলে তারা আমাকেও মারধর করে।পরে এলাকাবাসী এগিয়ে এলে তারা পালিয়ে যায়। তাদের আক্রমণে আমার বাবার মাথায়,হাতে ও পায়ে কুপ পড়ে। এতে বাবার মাথা গুরুতর জখম এবং হাতের আঙ্গুল কেটে গেছে। বাবার চিকিৎসা চলছে তাই আমি তাদের নামে ২৩ এপ্রিল ই থানায় মামলা করেছি কিন্তু এই ঘটনায় এখনো কেউ গ্রেফতার হয় নাই।

স্থানীয় এলাকাবাসী জানান, মাগরিবের নামাজ শেষে বাড়ি ফেরার পথে  স্থানীয় ৫-৬ জন যুবক রফিকুল ইসলামকে এলোপাথাড়িকুপানো শুরু করে। তার চিৎকার শুনে আমরা এগিয়ে গেলে আক্রমণকারীরা পালিয়ে যায়। তারপর উনাকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে  নিয়ে যাওয়া হয়। আক্রমণকারীরা এলাকার নেশাগ্রস্ত চুর,ছিনতাইকারী বলেও জানান সবাই।

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুর রহিম অপার বাংলা নিউজকে জানান, এ বিষয়ে থানায় একটি মামলা হয়েছে এবং তদন্তে আমরা ঘটনার সত্যতা পেয়েছি। অভিযুক্ত আসামিরা গা-ঢাকা দিয়েছে। তবে তাদের গ্রেফতার করতে আমরা অভিজান চালিয়ে যাচ্ছি।