জম্মু-কাশ্মীর নিয়ে মোদির বৈঠক আজ, যেসব ইস্যু থাকছে আলোচনায়

সংগ্রহীত

জম্মু-কাশ্মীর নিয়ে মোদির বৈঠক আজ, যেসব ইস্যু থাকছে আলোচনায়

বিশেষ মর্যাদা বাতিলের দু’বছরের মাথায় প্রথমবারের মতো ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে বৈঠক করতে যাচ্ছেন জম্মু ও কাশ্মীরের ১৪ জন রাজনৈতিক নেতা। বৈঠকে অংশ নিতে অনেক নেতারা ইতোমধ্যে দিল্লিতে পৌঁছেছেন। বৈঠক ডেকেছেন খোদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

বৃহস্পতিবার (২৪ জুন) ভারতীয় সংবাদমাধ্যম আনন্দবাজারের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। এই বৈঠকের কথা মাথায় রেখেই জম্মু-কাশ্মীরে আগামী ৪৮ ঘণ্টার জন্য রেড অ্যালার্ট জারি করা হয়েছে। সেই সঙ্গে চূড়ান্ত সতর্কতা জারি হয়েছে নিয়ন্ত্রণরেখা জুড়ে।

গণমাধ্যমটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বৈঠকের বিষয়বস্তু এখনও সরকারি ভাবে জানানো না-হলেও সূত্রের মতে, জম্মু-কাশ্মিরে আগামী দিনে বিধানসভা নির্বাচন করানোর পক্ষপাতী কেন্দ্র। কিন্তু তার আগে দু’দশক ধরে আটকে থাকা জম্মু-কাশ্মীরের বিধানসভা আসনগুলির পুনর্বিন্যাস সেরে ফেলতে চায় মোদি সরকার। সূত্রের মতে, সেই বিষয়টি আলোচনার জন্যই ওই বৈঠক ডেকেছে কেন্দ্র।

কাশ্মীরের ছয় দলের গুপকর জোটের মুখপাত্র তথা সিপিএম নেতা ইউসুফ তারিগামি বলেছেন, ‘কী নিয়ে আলোচনা হবে তা জানি না। সরকার কী বলতে চাইছে, তা দেখেই জোট সিদ্ধান্ত নেবে।’ তবে ইতিমধ্যেই ফারুক আবদুল্লাহ বা মেহবুবা মুফতির মতো প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীরা জানিয়েছেন, বৈঠকে তাদের মূল দাবিই হবে জম্মু-কাশ্মিরের রাজ্যের মর্যাদা ও লোপ পাওয়া বিশেষ মর্যাদার পুনঃপ্রতিষ্ঠা।

 

এদিকে প্রগ্রেসিভ ডেমোক্র্যাটিক পার্টির (পিডিপি) প্রধান মেহবুবা বলেছেন, দুবছর আগে প্রধানমন্ত্রী আশ্বাস দিয়ে বলেছিলেন, পরিস্থিতি শান্ত হলে জম্মু-কাশ্মীরকে রাজ্যের মর্যাদা ফিরিয়ে দেওয়া হবে। বৈঠকে প্রধানমন্ত্রীকে তার আশ্বাসের কথা মনে করিয়ে দিতে চাই।

২০১৯ সালে জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করা হয়েছিল। ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ ধারা প্রত্যাহারের মাধ্যমে বিশেষ মর্যাদা বাতিল করে রাজ্যটিকে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে পরিণত করা হয়। শুরু হয় গণবিক্ষোভ। পরিস্থিতি মোকাবিলায় জারি করা হয় লকডাউন। চলে ব্যাপক ধরপাকড়। এরপর প্রায় দুই বছর হতে চলল। রাজ্যের মর্যাদা এখনো ফিরে পায়নি জম্মু-কাশ্মীর।