তালবানের ওপর বোমা হামলার দায় স্বীকার করল আইএস

তালবানের ওপর বোমা হামলার দায় স্বীকার করল আইএস
আফগানিস্তানের জালালাবাদে তালেবানকে লক্ষ্য করে বোমা হামলার দায় স্বীকার করেছে আইএস। এদিকে তালেবান ও আইএসের উত্থানে আফগানিস্তানে দিনদিন উদ্বেগজনক পরিস্থিতি তৈরি হচ্ছে বলে মনে করছে সৌদি আরব।

অন্যদিকে চরম মানবিক সংকটে ভুগতে থাকা দেশটি থেকে বাস্তুচ্যুত আফগানদের জন্য বিদেশি সহায়তার আহ্বান জানিয়েছে তালেবান।

আফগানিস্তানের নানগারহার প্রদেশের রাজধানী জালালাবাদে তালেবান সদস্যদের লক্ষ্য করে বোমা হামলার দায় স্বীকার করেছে আইএস। গেল রোববার জালালাবাদে তালেবানদের একটি পিকআপ লক্ষ্য করে চালানো হামলায় বেশ কয়েকজন হতাহত হন।

এর আগে শনিবারও শহরটির তিনটি স্থানে তালেবানদের লক্ষ্য করে সিরিজ বোমা হামলা চালানো হয়।

একদিকে আল কায়েদা, আইএসের মতো সংগঠন; অন্যদিকে তালেবানের উত্থানে আফগানিস্তান উদ্বেগজনক পরিস্থিতিতে পৌঁছেছে বলে মন্তব্য করেছেন সৌদি আরবের পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রিন্স ফয়সাল বিন ফারহান আল সৌদ।

তিনি জানান, তালেবানের নতুন সরকারের সঙ্গে সৌদি আরবের এখনো কোনো যোগাযোগ হয়নি। এছাড়া দেশটির কর্মকাণ্ড পর্যবেক্ষণ করেই স্বীকৃতি দেওয়ার কথা ভাবছে সৌদি সরকার।
এদিকে তালেবানে ক্ষমতা গ্রহণের এক মাস পেরোলেও নারী অধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়নি দেশটিতে। কাবুলে সরকারি চাকুরিজীবী নারীদের ঘরে থাকার নির্দেশ দিয়েছে তালেবান সরকার। এমন ঘোষণার পরপরই নিজেদের অধিকারের দাবিতে বিক্ষোভ করেছেন নারীরা।

দিনদিন আফগানিস্তানে মানবিক সংকট চরমে পৌঁছে যাচ্ছে। জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচির তথ্যমতে, আগামী বছরের মাঝামাঝি সময়ে আফগানিস্তানের ৯৭ শতাংশ মানুষ দারিদ্র্যসীমার নিচে চলে যেতে পারে।

এরমধ্যেই দুর্ভিক্ষ এবং খরার কারণে হাজার হাজার আফগান নিরাপদ আশ্রয় খুঁজতে গ্রাম ছেড়ে শহরে চলে যেতে বাধ্য হয়েছেন। এ অবস্থায় বাস্তুচ্যুত আফগানদের জন্য বিদেশি সহায়তার আহ্বান জানিয়েছে তালেবান সরকার।