তিন মন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন সাংবাদিক নেতারা

সংগ্রহীত

তিন মন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন সাংবাদিক নেতারা

সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের নিঃশর্ত মুক্তি ও মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে সরকারের তিন জন মন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন সাংবাদিক নেতারা

বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে), ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন, জাতীয় প্রেসক্লাব, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি ও ব্রডকাস্ট জার্নালিস্ট সেন্টারের প্রতিনিধিরা রোববার তিন মন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন।

শনিবার (২২ মে) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে বৈঠক শেষে এ তথ্য জানান ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (একাংশ) সভাপতি কুদ্দুস আফ্রাদ।

তিনি বলেন, রোববার সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এবং তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদের সঙ্গে সাংবাদিকদের প্রতিনিধি দল দেখা করবে। এর আগেই রোজিনা মুক্তি পাবে বলে আশা করছি। রোববার   আদালতের সিদ্ধান্তের পর আবার বৈঠক করে নতুন কর্মসূচি নেওয়া হবে।

সাংবাদিক নেতা ইকবাল সোবহান চৌধুরী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাংবাদিকবান্ধব। তার সরকারের সময়ে কিছু আমলা সরকার ও গণমাধ্যমকে মুখোমুখি অবস্থানে দাঁড় করিয়েছে। আমরা আশা করছি এই অবস্থার নিরসন হবে। সেই সঙ্গে আমাদের আন্দোলন অব্যাহত থাকবে। রোববার আমরা তিনজন মন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করব। আমরা চেষ্টা করব এই বিষয়ে সুরাহার জন্য প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করার।

তিনি বলেন, এই মুহূর্তে আমাদের একটাই প্রত্যাশা রোজিনা ইসলামের জামিন। সেই সঙ্গে যে মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে তাকে হেনস্তা করা হয়েছে সেগুলো নিয়েও আমরা সরকারের নীতিনির্ধারকদের সঙ্গে আলাপ করব।

বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন সাংবাদিক নেতা ইকবাল সোবহান চৌধুরী, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মোল্লা জালাল ও ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব আবদুল মজিদ, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের একাংশের সভাপতি কুদ্দুস আফ্রাদ ও সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ আলম খান তপু, জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি ফরিদা ইয়াসমিন, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সহ-সভাপতি ওসমান গনি বাবুল ও সাধারণ সম্পাদক মসিউর রহমান খান, ব্রডকাস্ট জার্নালিস্ট সেন্টারের ট্রাস্টি রেজওয়ানুল হক রাজা ও সদস্য সচিব শাকিল আহমেদ প্রমুখ।

গত বৃহস্পতিবার (২০ মে) সকালে ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট বাকী বিল্লাহর ভার্চ্যুয়াল আদালতে সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের জামিন শুনানি হয়। রাষ্ট্রপক্ষের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য উপস্থাপন ও জামিন বিষয়ে আগামী রোববার আদেশ দেওয়ার কথা জানান আদালত।

গত মঙ্গলবার রোজিনার বিরুদ্ধে করা পাঁচ দিনের রিমান্ড আবেদন নামঞ্জুর করেন অপর মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ জসিম। একই সঙ্গে জামিন আবেদনের বিষয়ে শুনানির জন্য বৃহস্পতিবার দিন ধার্য করেন আদালত।

গত সোমবার বিকেলে সচিবালয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে হামলার শিকার হন সাংবাদিক রোজিনা ইসলাম। তাকে ছয় ঘণ্টা আটকে রেখে রাত সাড়ে ৮টার দিকে সচিবালয় থেকে পুলিশি পাহারায় শাহবাগ থানায় নেওয়া হয়। সোমবার রাতেই রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে শাহবাগ থানায় একটি মামলা করা হয়েছে। মামলার নম্বর ১৬।

দণ্ডবিধি ৩৯৭ এবং ৪১১ অফিসিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্ট ১৯২৩ এর ৩/৫ এর ধারায় এ মামলা করেন স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের উপসচিব শিব্বির আহমেদ ওসমানী। যেখানে সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে সরকারি নথি সরানো ও ছবি তোলার অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। এ মামলায় একমাত্র আসামি করা হয়েছে রোজিনা ইসলামকে।