তৌফিক-ই-ইলাহীর নেতৃত্বে অসংখ্য যুদ্ধ সংগঠিত হয়

সংগ্রহীত

তৌফিক-ই-ইলাহীর নেতৃত্বে অসংখ্য যুদ্ধ সংগঠিত হয়

যশোর, বেনাপোল, শিকারপুর এলাকায় অগনিত যুদ্ধ সংগঠিত হয় তৌফিক-ই-ইলাহীর নেতৃত্বে। তিনি ছিলেন ৮ নম্বর সেক্টরের সাব-কমান্ডার। যুদ্ধের শুরুতে তিনি ভারতকে দুটি গুরুত্বপূর্ণ চিঠি দিয়েছিলেন। শুরু করেছিলেন যুদ্ধের প্রস্তুতিও। মুজিবনগর সরকার গঠনের আয়োজনেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় ছিলেন বীর বিক্রম খেতাবপ্রাপ্ত এই মুক্তিযোদ্ধা। 

বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণই জীবনের মোড় এবং বিশ্বাসকে পরিবর্তন করে দেয় তাঁর। এরপর বাঙালিদের জয় বাংলা শ্লোগানের সাথে একত্মতা স্বীকার করেন তিনি। কথাগুলো বলছিলেন বীর বিক্রম খেতাবপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা তৌফিক-ই-ইলাহী। 

২৫শে মার্চ ১৯৭১। পাকিস্তানী হানাদাররা ঝাঁপিয়ে পড়ে নিরস্ত্র বাঙালীর ওপর। সেই খবর মেহেরপুর থেকে পান তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী। তখন তিনি মেহেরপুরের জেলা প্রশাসকের দায়িত্বে। সেদিনই জনগণের সাথে দেশ স্বাধীনের নেশায় প্রস্তুতি নেন যুদ্ধের। ২৬শে মার্চ দুটি চিঠি পাঠান ভারতে। যেখানে ছিলো তাঁর সাক্ষর ও সরকারি সিলমোহর।

২৭ মার্চ, অমৃত বাজার পত্রিকায় প্রকাশিত হয় তাঁর ২য় চিঠিটি। এরপর ভারত থেকে ডাক আসে তাঁর। বাংলাদেশের দূত মর্যাদা নিয়ে ভারতে যান তিনি। পান গার্ড অব অনার। ১৭ ই এপ্রিল, ১৯৭১, মুজিবনগর সরকার গঠিত হয়। সেখানে সক্রিয় ভূমিকা পালন করেন তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী। 

৮ নম্বর সেক্টরের শিকারপুর সাব-সেক্টরের অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করেন তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী। পরে বেনাপোল সাব-সেক্টরের অধিনায়ক হন তিনি। ১২ ই সেপ্টেম্বর, ১৯৭১। তাঁর নেতৃত্বে ভারতের কাঁঠালবাগান ক্যাম্প থেকে বাংলাদেশে প্রবেশ করে মুক্তিযোদ্ধারা। পটুয়াখালীতে, পাকিস্তানী সেনাদের সাথে হয় তুমুল যুদ্ধ।