দুই বছর পরপর বিশ্বকাপ আয়োজনে বাংলাদেশের সম্মতি

দুই বছর পরপর বিশ্বকাপ আয়োজনে বাংলাদেশের সম্মতি

দুই বছর পর পর বিশ্বকাপ টুর্নামেন্টের আয়োজন করা হলে তা এই অঞ্চলের ফুটবলের উন্নয়নে সাহায্য করবে বলে মনে করে বাংলাদেশসহ দক্ষিণ এশিয়ার চারটি দেশের জাতীয় ফুটবল ফেডারেশন। গত মে মাসে অনুষ্ঠিত ফিফা কংগ্রেসে দুই বছর পর পর নারী ও পুরুষদের ফুটবল বিশ্বকাপ আয়োজনের সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের পক্ষে ভোটও দেয় তারা।

বাংলাদেশ, মালদ্বীপ, নেপাল ও শ্রীলঙ্কার ফুটবল ফেডারেশন একটি যৌথ বিবৃতিতে জানিয়েছে, তারা ওই ১৬৬টি জাতীয় ফেডারেশনের সাথে আছে যারা দুই বছর পর পর বিশ্বকাপ আয়োজনের সম্ভাবনা খতিয়ে দেখার পক্ষে ভোট দিয়েছে।

এশিয়ার দেশগুলো যে বিশ্বকাপ খেলার যথেষ্ট সুযোগ পাচ্ছে না এটিই মূল কারণ বলে মনে করা হচ্ছে। যৌথ বিবৃতিতে বলা হয়, “ফিফা বিশ্বকাপের ইতিহাসের ১০০ বছর হতে চলেছে, কিন্তু এশিয়ান ফুটবল কনফেডারেশন্সের বর্তমান সদস্যদের চার ভাগের একভাগও বিশ্বকাপে খেলতে পারেনি”।

তবে বিশ্বকাপের বর্তমান কাঠামোতে পরিবর্তন আনার বিপক্ষে ইউরোপের ফুটবল খেলা দেশগুলোর পরিচালক সংস্থা উয়েফা এবং ওই মহাদেশের শীর্ষস্থানীয় ক্লাবগুলো।

 

কাতারে আগামী বছর ফুটবল বিশ্বকাপের যে আসর বসতে যাচ্ছে, তাতে এশিয়া থেকে চারটি দেশ সরাসরি খেলতে পারবে। আর মহাদেশীয় প্লে-অফ খেলে সুযোগ পেতে পারে আরও একটি দেশ।

তবে ফিফা দুই বছর পরপর বিশ্বকাপ আয়োজনের চিন্তা করলেও উয়েফা ও ইউরোপের শীর্ষ ক্লাবগুলো এই প্রস্তাবনায় রাজি হবে না বলে মনে করছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।