নৌকার প্রচারণায় আইভীর  উৎসবে আমেজ – জমজমাট নারায়ণগঞ্জ

নৌকার প্রচারণায় আইভীর  উৎসবে আমেজ – জমজমাট নারায়ণগঞ্জ
নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের (নাসিক) নির্বাচন ঘিরে উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে। নৌকা প্রতীক পাওয়ার পর গতকাল আনুষ্ঠানিকভাবে প্রচারে নামেন ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী। দলের নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে উৎসবমুখর পরিবেশে বিকাল ৩টায় গণসংযোগ শুরু করেন টানা দুই বারের মেয়রের দায়িত্ব পালন করা আইভী। নির্বাচনি প্রচারের প্রথম দিন তিনি বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে নিয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ চষে বেড়ান।

এক পর্যায়ে আইভীকে ঘিরে মানুষের ঢল নামে। পরে তিনি চৌধুরীবাড়ি ও নতুন আইলপাড়াসহ আশপাশের বিভিন্ন এলাকায় গণসংযোগ করেন।

এ সময় মেয়র আইভী ভোটারদের উদ্দেশ্যে বলেন, আজ (বুধবার) আমি মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে নির্বাচনি প্রচার শুরু করলাম। মেয়র পদে সবাই আমার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী। সব প্রার্থীকে সম্মান জানিয়ে আমি প্রচার চালিয়ে যাব। আশা করি, ইনশাআল্লাহ নৌকা জয়যুক্ত হবে। মা-বোনদের ভোটে নৌকা জয়যুক্ত হবে।

আইভী বলেন, সিটি করপোরেশনের দায়িত্ব পাওয়ার পর আমি কোনো ট্যাক্স বাড়াইনি। আমি যদি ট্যাক্স বাড়াতাম তবে গত ৫ বছর এ বিষয়ে কেউ কোনো অভিযোগ করেনি কেন? হঠাৎ করে এ ইস্যুতে স্ট্যান্টবাজি করে মানুষকে বোকা বানানো যাবে না। সিটি করপোরেশনে যেটা ট্যাক্স আছে জনগণ সেটাই দিচ্ছেন। হঠাৎ উনি (স্বতন্ত্র প্রার্থী তৈমুর আলম খন্দকার) বিভ্রান্তি তৈরি করার চেষ্টা করছেন। এ বিভ্রান্তি কারো জন্যই কাম্য নয়।

গণসংযোগকালে আইভী সিদ্ধিরগঞ্জের আইলপাড়া, এনায়েতনগর, মোল¬াবাড়ি মাজার, তাতখানা, চৌধুরীবাড়ি, আদর্শবাজার, উত্তরতাতখানা, বৌবাজার, ক্যানেলপাড়, নয়াপাড়া, উত্তর ধনকুন্ডা, ২নং ঢাকেশ্বরী বাসস্ট্যান্ড যান এবং ভোটারদের সঙ্গে কথা বলেন। তিনি আসন্ন সিটি নির্বাচনে তাকে নৌকা মার্কায় ভোট দেওয়ার জন্য অনুরোধ করেন।

নৌকার এই প্রার্থী গণসংযোগের সময় মোল্লাবাড়ি এলাকায় শাহ সুফী ফকির হাসান আলী মুজাদ্দেদীর (রহ.) মাজার জিয়ারত করেন। রাত সাড়ে ৭টায় তিনি যান গোদনাইল ক্যানেলপাড় এলাকায়। সেখানে ভোটারদের সঙ্গে কথা বলেন এবং নৌকা মার্কায় ভোট চান।

প্রচার চলার সময় আইভীকে কাছে পেয়ে অনেক নারী ছুটে আসেন। এ সময় তাকে টেনে বুকে তুলে নেন এবং জড়িয়ে ধরে তার জন্য আল্লাহর দরবারে দোয়া করেন। এ সময় বাড়ির ছাদ থেকে, ঘরের জানালা দিয়ে, বারান্দায় এসে আইভীকে স্বাগত জানাতে দেখা যায় উৎসুক নারী-পুরুষ সবাইকে। এ সময় অনেক বয়স্ক ভোটাররাও তাকে এক নজর দেখতে ছুটে আসেন।

গণসংযোগের সময় কোথাও কোথাও নারী ভোটারদের ফুলের পাপড়ি ছিটিয়ে তাকে তাদের এলাকায় স্বাগত জানাতে দেখা যায়। এ সময় অনেকেই তাকে ফুলের তৈরি নৌকা উপহার দেন।

ডা. আইভীকে কাছে পেয়ে কিশোর-কিশোরীরা সেলফি তুলতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। শত ব্যস্ততার মাঝেও আইভী তাদের নিরাশ করেননি। সেলফি তোলার ডাকে সাড়া দিয়ে তিনি তাদের উৎসাহিত করেন। এ সময় অনেক বয়স্ক ভোটারও তাকে এক নজর দেখতে ছুটে আসেন।

এলাকা ঘুরে বেড়ানোর সময় আইভী ও নৌকা মার্কার পক্ষে নানা শ্লোগান দেওয়া হয়। শ্লোগান উঠে ‘আইভী আপার মার্কা, নৌকা, নৌকা।’

গণসংযোগের সময় তার সঙ্গে ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, মুক্তিযোদ্ধা আবদুস সালাম, জুলহাস ভূঁইয়া, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি সাদেকুর রহমান, ৮নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী রুহুল আমিন, শহর যুবলীগের সহসভাপতি কামরুল হুদা বাবু, এহসান কবির রমজান, মহিউদ্দিন মোল্লা, কৃষক লীগ নেতা ইয়াছিন মিয়া, নুর হোসেন মোল্লা, যুবলীগ নেতা শিহাব উদ্দিন রিপন, শ্রমিক লীগ নেতা আরিফ মাহমুদ, হাবিবুর রহমান মোল্লাসহ যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা।