নৌ-পথে ভারতে খাদ্যপণ্য রপ্তানি নতুন দিগন্তের উন্মোচন: নৌ-প্রতিমন্ত্রী

সংগ্রহীত

নৌ-পথে ভারতে খাদ্যপণ্য রপ্তানি নতুন দিগন্তের উন্মোচন: নৌ-প্রতিমন্ত্রী

নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, প্রথমবারের মতো নৌপথে ভারতে খাদ্য পণ্য রপ্তানির মাধ্যমে দেশের একটি নতুন দিগন্ত উন্মোচন হয়েছে। ভবিষ্যতে এই নৌপথ ব্যবহার করে শুধু কলকাতা নয় আসাম ও ভুটানসহ আশপাশের বিভিন্ন দেশে আমরা এই পণ্য পাঠাতে চাই। 

স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উপলক্ষে মঙ্গলবার (১৬ মার্চ) দুপুরে নরসিংদীর ঘোড়াশাল জেটি থেকে প্রথমবারের মতো নৌপথে খাদ্যপণ্য রপ্তানির উদ্বোধন করেন তিনি। 

এ সময় ঝামেলামুক্ত ও সাশ্রয়ী পণ্য রপ্তানির আশার কথা জানিয়ে নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, অর্থনৈতিকভাবে আরো এক ধাপ এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ।

তিনি বলেন, নৌ পরিবহন যে একটি সাশ্রয়ী পরিবহন হতে পারে আমরা এই ব্যাপারে ব্যবসায়ীদের আশ্বস্ত করতে পেরেছি। ব্যবসায়ীরা এগিয়ে এসেছে আরএফএল গ্রুপ এগিয়ে এসেছে। 

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আজকে যে খাদ্যপণ্য যাচ্ছে এটাকে পাইলট বলা যায়। ভবিষ্যতে অন্যন্য পণ্যও দেশের বাইরে যাবে। সড়ক পথে পরিবহনে খরচের যে সীমাদ্ধতা রয়েছে নৌপথে সীমাবদ্ধতা অনেক কম। একসঙ্গে অনেক পণ্য পরিবহন করা যায়। পণ্যের দামও সেক্ষেত্রে অনেক কমে যাবে।

এসময় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন নরসিংদী-২ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আশরাফ খান দীলিপ, প্রাণ আরএফএল গ্রুপের চেয়ারম্যান আহসান খান চৌধুরী, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. মো. জাফর উদ্দীন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক কমল কুমার ঘোষ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইনামুল হক সাগর, পলাশ উপজেলা চেয়ারম্যান সৈয়দ জাবেদ হোসেন, পলাশ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুমানা ইয়াসমীন ও ঘোড়াশাল পৌরসভার মেয়র শরীফুল হক প্রমুখ।