ন্যু ক্যাম্পে বার্সার হ্যাটট্রিক হার

ন্যু ক্যাম্পে বার্সার হ্যাটট্রিক হার
ঘরের মাঠে দুর্বলরাও হুঙ্কার দিয়ে ভয়ঙ্কর রূপ ধারণ করে, ফুটবলের এমন সাধারণ ধারণার উল্টো পিঠ দেখল বার্সেলোনা। ন্যু ক্যাম্পে রায়ো ভায়েকানোর বিপক্ষে ১-০ গোলে হেরে নিজেদের ডেরায় হারের হ্যাটট্রিক পূর্ণ করেছে জাভি হার্নান্দেজের দল।

ম্যাচের ৭ মিনিটে পিছিয়ে পরে বাকি সময়েও একটি গোল আদায় করতে পারেনি বার্সা। এ হারে অসম্ভব হয়ে গেল লা লিগা জয়ের ক্ষীণ সম্ভাবনা টুকুও। টেবিলের চূড়ায় থাকা রিয়াল মাদ্রিদের থেকে এখনো ১৫ পয়েন্ট দূরে বার্সা।

ম্যাচ শুরু সাত মিনিটের মাথায় পালাজন কামাচোর বাড়িয়ে দেয়া বলে আঘাত হানে আলভোরো গার্সিয়া। পিছিয়ে পড়ে আক্রমণ চালিয়ে গেলেও স্বপ্ন ভঙ্গের হতাশা পুরো ম্যাচেই ভুগিয়েছে বার্সাকে। প্রতিপক্ষের ডেরায় বেশ কিছু আক্রমণ চালালেও দুর্গ ভেদ করতে পারেনি বার্সা। ফরোয়ার্ডদের গোল মিসের মহড়ায় শেষ পর্যন্ত আরও একবার হার দেখেতে হয়েছে জাভিকে।

তবে ম্যাচের ৪২ মিনিটে পাবলো গ্যাভিরার বল গোলবারে লেগে ফিরে আসার পর তা জালে পাঠালেও অফসাইডে বাতিল হয়ে যায় গোলটি।

দ্বিতীয়ার্ধে নেমে আক্রমণে গতি আনে বার্সা। তাতেও সাফল্য মেলেনি। বার্সার আক্রমণ ঠেকাতে একের পর এক ফাউল করেছে ভায়োকানো। ম্যাচে ১৫টি ফাউল ও ৬টি হলুদ কার্ড দেখতে হয়েছে আন্দোনি ইরাওলার দলকে।

ম্যাচ হারের পর এ হার লজ্জার বলে মন্তব্য করেন জাভি।

আমাদের আরও বেশি প্রাপ্য ছিল। এটা সত্য যে প্রথমার্ধে আমরা নিজেদের মতো খেলিনি কিন্তু দ্বিতীয়ার্ধে আমরা উন্নতি করেছি। আমাদের সামনের ম্যাচগুলো আরও ভালোভাবে শুরু করতে হবে। এই হার লজ্জার কেননা আমাদের জয়ের সুবর্ণ সুযোগ ছিল।

গোল বাতিল হওয়ায় রেফারিকে নিয়েও কথা বলেন বার্সা কোচ।

বল ভিতরে যাবে না। কাদিজের বিপক্ষে ম্যাচের মতোই হয়েছে। অন্য দলগুলো নিজেদের উজাড় করে খেলছে। রেফারি তাদের ইচ্ছা পূরণে সাহায্য করছে।

ন্যু ক্যাম্পে ইউরোপা লিগের কোয়ার্টার ফাইনালে ফ্রাঙ্কফুর্টের বিপক্ষে ৩-২ গোলে হারের পর তলানির কাদিজের বিপক্ষেও ১-০ গোলে হেরেছিল বার্সা। রায়ো ভায়েকোনোর বিপক্ষে হেরে লজ্জার হ্যাটট্রিক পূর্ণ করে জাভির দল।