ফাইনাল মহারণে ম্যানসিটি-টটেনহ্যাম

সংগ্রহীত

ফাইনাল মহারণে ম্যানসিটি-টটেনহ্যাম

লিগ কাপের ফাইনালের লড়াইয়ে মুখোমুখি ম্যানচেস্টার সিটি ও টটেনহ্যাম হটস্পার। টানা চতুর্থবারের মত আসরের শিরোপা জয়ের সুযোগ সিটিজেনদের সামনে।

অন্যদিকে, ১৩ বছরের শিরোপা খরা ঘোচাতে মুখিয়ে আছে স্পার। ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে দু’দলের ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় রাত সাড়ে ৯টায়।

ইউরোপিয়ান ক্লাব ফুটবলে এখন আলোচনার উৎস একটাই। আর তা হলো সুপার লিগ। তবে, এর মাঝেও খেলা। এবার তারই ধারাবাহিকতায় লিগ কাপের ফাইনালে মুখোমুখি হওয়ার অপেক্ষায় দুই জায়ান্ট ম্যানচেস্টার সিটি ও টটেনহ্যাম হটস্পার।

১৩ বছরের শিরোপা খরা ঘোচানোর সুযোগ স্পারদের সামনে। সিটিজেনরাও মুখিয়ে আছে টানা চতুর্থবার লিগ কাপের ট্রফি নিজেদের করে নিতে।

ফাইনালের মঞ্চে ইনজুরির কারণে ম্যানচেস্টার সিটি পাচ্ছেনা তাদের তারকা ফুটবলার কেভিন ডি ব্রুইনাকে । শঙ্কা আছে আরেক তারকা খেলোয়াড় সার্জিও অ্যাগুয়েরোকে নিয়েও। আর নিষেধাজ্ঞার কারণে থাকছেন না জন স্টোনস। তবে, এসব নিয়ে চিন্তিত নন কোচ পেপ গার্দিওলা। বরং স্পারদের বিপক্ষে ম্যাচটা ভালোভাবে খেলে উপভোগ করতে চান সিটি বস।

ম্যানচেস্টার সিটির কোচ পেপ গার্দিওলা বলেন,  ‘এটা সাধারণ কোনো ম্যাচ নয়, এটা ফাইনাল। কোন ভুল করার সুযোগ নেই। মৌসুমের প্রথম শিরোপা জয়ের সুযোগ আমাদের সামনে। সবচেয়ে বড় কথা টটেনহ্যাম অনেক বছর কোন শিরোপা জেতেনি। তাই তারাও চাইবে এবার শিরোপার স্বাদ নিতে। তাদেরকে ছোট করে দেখার সুযোগ নেই। এ ম্যাচে আমাদের বাড়তি সতর্ক থাকতে হবে।’

টটেনহ্যামে শুরু হয়েছে নতুন যুগের। যে কোচের পরিকল্পনায় ফাইনালে উঠেছিলো, সেই মরিনিও নেই। নিজের প্রথম ম্যাচেই জয় পেয়েছেন অন্তর্বর্তীকালীন কোচ রায়ান মেসন।

দায়িত্ব নিয়েই দলকে ফিরিয়েছেন জয়ে। এবার আরও বড় অর্জন দিচ্ছে হাতছানি। ক্লাবের ১৩ বছরের শিরোপা খরা ঘোচানোর দারুণ এক সুযোগ তার সামনে। হেড টু হেড পরিসংখ্যান বলছে, খুব একটা তফাৎ নেই দু’দলের মধ্যে। ম্যান সিটির ৬৪ জয়ের বিপরীতে স্পারদের আছে ৬৩ জয়। তাই ফাইনালের এই লড়াইয়ে সর্বোচ্চটুকু উজাড় করে দিতে প্রস্তুত টটেনহ্যাম।

দলটির অন্তর্বর্তীলীন কোচ রায়ান ম্যাসন জানান, ‘প্রিমিয়ার লিগ আর ক্যারাবাও কাপ একেবারে ভিন্ন দুই প্রতিযোগিতা। ম্যানচেস্টার সিটি নিঃসন্দেহে লিগে ভালো করছে। কিন্তু ফাইনালে যেকোন কিছু হতে পারে। সিটিতে যেমন ভালো ভালো ফুটবলার রয়েছে। তেমনি আমাদের দলেও অনেক ভালো ভালো খেলোয়াড় আছে। ফাইনালে জয়ের পুরো আত্মবিশ্বাস নিয়েই আমরা মাঠে নামবো।’

দলের তারকা ফুটবলার হ্যারি কেইনের পাশাপাশি ম্যাট ডোহার্টিকে নিয়ে আছে শঙ্কা। আছে বেন ডেভিসের ইনজুরি। তারপরও সন, বেলদের নিয়ে জয়ের লক্ষ্যেই ছক কষছে স্পাররা।

মাঠে বসে এই ফাইনাল উপভোগ করতে পারবেন দুই ক্লাবের ৮ হাজার সমর্থক।