বিএনপির মিথ্যাচার সংক্রমণের মতো, মন্তব্য ওবায়দুল কাদেরের

বিএনপির মিথ্যাচার সংক্রমণের মতো, মন্তব্য ওবায়দুল কাদেরের

বিএনপির মিথ্যাচার ও অপপ্রচার সংক্রমণের মাত্রার সঙ্গে তাল মিলিয়ে উচ্চহারে ছড়িয়ে পড়েছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেছেন, বিএনপি জনগণের জন্য কিছু তো করবেই না উল্টো সরকার করতে গেলে অপপ্রচার আর গুজব ছড়িয়ে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করে।

বৃহস্পতিবার (১৬ জুলাই) রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে সরকারি বাসভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন।

স্বেচ্ছাসেবক লীগ আয়োজিত এ অনুষ্ঠানো তিনি আরও বলেন, করোনা সংক্রমণের শুরু থেকে রাজনৈতিক দল হিসেবে আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মী ছাড়া কোনো দলই অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ায়নি। বিএনপি মুখে বড় বড় কথা বললেও তাদেরকে জনগণের পাশে দাঁড়াতে দেখা যায়নি। এখন রাজনীতি হচ্ছে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানো।

তিনি বলেন, মানুষের পাশে দাঁড়ানোই এখন একমাত্র রাজনৈতিক ও সাংগঠনিক কর্মসূচি। আওয়ামী লীগ মাটি ও মানুষের রাজনীতি করে, অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানোর যে রাজনীতি বঙ্গবন্ধু শিখিয়েছেন তারই ধারাবাহিকতায় বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা তা করে যাচ্ছেন। লকডাউনে ক্ষতিগ্রস্ত নিম্ন আয়ের এবং প্রান্তিক মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণের প্রয়াস মানবিকতার এক অনন্য নজির। ঈদকে সামনে রেখে সারাদেশে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানো অব্যাহত রাখতে হবে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, একটি মহল সবসময় সরকারের অর্জনকে ম্লান করে দিতে ও বিতর্কিত করতে ওত পেতে থাকে। তাই স্বজনপ্রীতির ঊর্ধ্বে উঠে প্রকৃত উপকারভোগীদের মাঝে প্রণোদনার অর্থ পৌঁছে দেওয়ার ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে।

তিনি বলেন, যারা খেটে খাওয়া মানুষের সাহায্য নিয়ে নয়-ছয় করবে তাদের কোনোভাবেই ছাড় দেওয়া হবে না। জনগণের জন্য সরকার কিছু করছে না, এমন কাল্পনিক অভিযোগ প্রায়শ বিএনপি করে, তারা মুখে বড় বড় কথা বললেও মানুষের পাশে দাঁড়াতে তাদের দেখা যায় না।

ওবায়দুল কাদের বলেন, টিকা নিয়ে দুর্ভাবনার কোনো কারণ নেই। শেখ হাসিনা যতক্ষণ আছেন, তার নেতৃত্বের ওপর আস্থা রাখুন। এ দেশে সংকট ও দুর্যোগে অসীম সাহসিকতা নিয়ে যিনি অবিচল থাকেন তিনিই শেখ হাসিনা। নিজের জীবন বাজি রেখে যিনি জনগণের মুখে হাসি ফোটান, তিনিই বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনা।

টিকা নিয়ে গুজবে কান না দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, প্রয়োজনীয় টিকা যথাসময়ে দেশে আসবে। এ নিয়ে অযথা বিভ্রান্তি ছড়িয়ে লাভ নেই। করোনা প্রতিরোধে ঘরে ঘরে সচেতনতার দুর্গ গড়ে তোলতে হবে। জনগণ স্বাস্থ্যবিধি ও মাস্ক পরিধান নিশ্চিত করলে লকডাউনের প্রয়োজন হবে না। মাস্ক পরিধানের মধ্যেই রয়েছে করোনা থেকে মুক্তির কার্যকর পথ।