ভিয়ারিয়ালকে হারিয়ে ফাইনালের পথে লিভারপুল

ভিয়ারিয়ালকে হারিয়ে ফাইনালের পথে লিভারপুল
চ্যাম্পিয়নস লিগে এবারের মৌসুমে শেষ ষোলতে ইতালিয়ান ক্লাব জুভেন্টাস এবং কোয়ার্টার ফাইনালে জায়ান্ট বায়ার্ন মিউনিখকে হারিয়ে চমক দেখিয়েছিল ভিয়ারিয়াল। সেমিফাইনালেও তাদের কাছে প্রত্যাশা ছিল ভালো কিছু।
তবে আসরের শেষ চারের প্রথম লেগে স্প্যানিশ ক্লাবটিকে মাটিতে নামাল লিভারপুল। ২-০ গোলে জিতে নিয়েছে ইয়র্গেন ক্লপের শিষ্যরা। আর এ জয়ে ফাইনালে এক পা দিয়ে রাখল লিভারপুল। এদিন ভিয়ারিয়াল প্রথমার্ধ ভালো প্রতিরোধ করলেও বিরতির পর তিন মিনিটের মধ্যে দুই গোল করে স্বস্তি নিয়ে মাঠ ছাড়ে লিভারপুল।
বুধবার রাতে লিভারপুলের ঘরের মাঠে অ্যানফিল্ডে খেলতে যায় ভিয়ারিয়াল। অল রেডদের হয়ে গোল করেছেন সাদিও মানি এবং বাকি গোলটি আত্মঘাতী। নিজেদের জালেই বল জড়ান পেরভিস ইস্তুপিনান।
ম্যাচে প্রথমার্ধের ৪৫ মিনিট পর্যন্ত ভিয়ারিয়ালের রক্ষণ ভাঙতে পারেননি সালাহ-মানেরা। কখনো নিখুঁত ফিনিশিং আবার কখনো বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে গোলকিপার  রুল্লি। তবে দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই দুই গোল করে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেয় স্বাগতিকরা।
খেলার ৫৩তম মিনিটে আত্মঘাতী গোলে এগিয়ে যায় লিভারপুল। ডান প্রান্ত থেকে হেন্ডারসনের ক্রস ব্লক করতে গিয়ে ইস্তুপিনানের পায়ে লেগে খানিকটা দিক বদলে দূরের পোস্টে গিয়ে জালে জড়ায়। গোলকিপার রুল্লি ঝাঁপিয়েও ঠিকঠাক নাগাল পায়নি। দুই মিনিট বাদেই আবারও গোল করে লিভারপুল। সালাহর থ্রু পাস ধরে অফসাইড ফাঁদ ভেঙে বল জালে জড়ান সাদিও মানে। বাকি সময়ে আর ম্যাচে ফেরার রসদ পায়নি ভিয়ারিয়াল। লিভারপুলও পারেনি ব্যবধান বাড়াতে।
আগামী ৫ই মে রাতে ভিয়ারিয়ালের মাঠে ফিরতি লেগে মুখোমুখি হবে দুই দল। ফাইনালে যেতে হলে সে ম্যাচে ভিয়ারিয়ালের দরকার ন্যুনতম তিন গোলের ব্যবধানে জয়। ২-০ গোলে জিতলে ম্যাচ গড়াবে অতিরিক্ত সময়ে। আর লিভারপুল ১-০ গোলে হারলেও ফাইনাল নিশ্চিত হবে।