মগবাজার বিস্ফোরণ : যা দেখা গেল সিসিটিভির ফুটেজে

সংগ্রহীত

মগবাজার বিস্ফোরণ : যা দেখা গেল সিসিটিভির ফুটেজে
রাজধানীর মগবাজার ওয়ারলেসে ঘটে যাওয়া ভয়াবহ বিস্ফোরণের সময়ের আরও একটি সিসিটিভির ফুটেজ পাওয়া গেছে। বিস্ফোরণ হওয়া মৌচাক-মগবাজার সড়কের ৭৯ আউটার সার্কুলার রোডের সেই তিনতলা পুরনো ভবনের উল্টোপাশে থাকা বেসরকারি রাশমনো স্পেশালাইজড্ হাসপাতালের একটি ভিডিও ফুটেজ প্রকাশ্যে এসেছে।
ভিডিওতে দেখা যায়, দুই সেকেন্ডের মধ্যে পরপর দুটি বিস্ফোরণ হয়েছে। অর্থাৎ, সন্ধ্যা ৭ টা ২২ মিনিট ২৫ সেকেন্ডে প্রথম বিস্ফোরণের হলকা দেখা যায়, এরপর ২৬ সেকেন্ডে দ্বিতীয় হলকা দেখা যায়। বিস্ফোরণের শব্দে আশপাশে থাকা মানুষ স্তম্ভিত হয়ে যায়। এরপরই আশপাশের ভবনে থাকা মানুষদের রাস্তায় বেরিয়ে আসতে দেখা যায়।
এর আগে, ওই এলাকায় থাকা ফ্যাশন ব্র্যান্ড আড়ংয়ের আউটলেট এর সিসিটিভির ফুটেজ প্রকাশ পেয়েছিল। সেখানে দেখা গেছে, আউটলেটে প্রবেশের পথ দিয়ে লোকজন আসা-যাওয়া করছেন। হঠাৎ ধেয়ে আসে বিস্ফোরণের হলকা। ভেঙে যায় আউটলেটের কাচ। ভয়ে জুবুথুবু হয়ে যান কেনাকাটা করতে আসা মানুষ ও বিপণনকর্মীরা। বিস্ফোরণের পরপরই লোকজনকে ছোটাছুটি করতে দেখা যায়।
রোববার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় তিনতলা ভবনে ওই বিস্ফোরণে এক শিশু ও তার মাসহ ৭ জন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় ৫০ জনের ওপর আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে তিনজনের অবস্থা খুবই আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের প্রধান সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেন।
এরইমধ্যে বিস্ফোরণের মূল কারণ বের করতে ঘটনাস্থল থেকে আলামত সংগ্রহ করছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) ফরেনসিক ও ক্রাইম সিন ইউনিট। অন্যদিকে ফায়ার সার্ভিস থেকে গঠিত তদন্ত কমিটিও ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে আলামত সংগ্রহ করছে।
সোমবার (২৮ জুন) দুপুর ১২টায় ঘটনাস্থলে পরিদর্শনে আসে ক্রাইম সিন ইউনিট। এসময় ইউনিটটির প্রধান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান জানান, বিস্ফোরণের আলামত সংগ্রহ করা হচ্ছে। সেগুলো ফরেনসিক পরীক্ষা করে দেখা হবে। আমাদের চৌকষ দল ক্ষতিগ্রস্ত ভবন ও আশপাশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা এরিয়া কর্ডন করে আলামত সংগ্রহ করছেন।
এদিকে, প্রাথমিক তদন্তে ওই বিস্ফোরণের ঘটনায় বৈদ্যুতিক লাইনে কোনও সমস্যা পায়নি ঢাকা বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানি (ডিপিডিসি)। তবে ভেতরে কোনো ধরনের বৈদ্যুতিক ত্রুটি হয়েছিল কি না, তা এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি বলে জানিয়েছেন ডিপিডিসির ব্যবস্থাপনা পরিচালক বিকাশ দেওয়ান।
এ ঘটনার তদন্তে ডিপিডিসির নর্থ জোনের প্রধান প্রকৌশলী মো. আলী আশরাফকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। সোমবার (২৮ জুন) বিকেলে মধ্যে তার দল প্রতিবেদন জমা দেবে বলেও জানান বিকাশ দেওয়ান।
এর আগে, ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে বোম্ব এক্সপ্লোশন ইউনিট নিয়ে তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে বলে জানিয়েছিলেন পুলিশ মহাপরিদর্শক ড. বেনজীর আহমেদ। এমনকি প্রাথমিকভাবে নাশকতার আলামত পাওয়া যায়নি বলেও জানান তিনি।
বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘এটি একটি একমুখী ধ্বংসযজ্ঞ। প্রাথমিকভাবে নাশকতার আলামত পাওয়া যায়নি, তবে মিথেন গ্যাসের আলামত পাওয়া গেছে। বোমা হলে চতুর্মাত্রিক ধ্বংসযজ্ঞ হতো। তবে সব বিষয় মাথায় রেখে তদন্ত করে দেখা হবে।’