মৃত্যুর আগে পর্যন্ত সৈয়দ আবুল মকসুদ কেন সেলাই বিহীন কাপড় পড়তেন?

সংগ্রহীত

মৃত্যুর আগে পর্যন্ত সৈয়দ আবুল মকসুদ কেন সেলাই বিহীন কাপড় পড়তেন?

মৃত্যুর আগে পর্যন্ত সেলাই বিহীন কাপড় পড়েছেন বিশিষ্ট সাংবাদিক ও কলামিস্ট সৈয়দ আবুল মকসুদ। প্রতিবাদের পোশাক হিসেবে এই সাদা কাপড় পড়েই তিনি বিভন্ন অনুষ্টনে যেতেন। এমনকি রাষ্ট্রীয় অনুষ্ঠানেও তিনি এই পোশাক পড়তেন। 

২০১৬ সালে প্রথম আলো পত্রিকায় ‘লুঙ্গি’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল এই কাপড় পড়ার কারণ। ২০০৩ সালে ইরাকে আক্রমন চালায় যুক্তরাষ্ট্র। আর সেই থেকে তিনি প্রতিবাদ করে পশ্চিমা পোশাক না পড়ার সিদ্ধান্ত নেন। জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত তিনি এই সাদা কাফনের কাপড় পড়েই পার করেছেন। কথা সাহিত্যক আনিসুল হক সেই ‘লুঙ্গি’ শিরোনামের প্রতিবেদনে এই সত্য ফাঁস করেন। 

আনিসুল হক লিখেছেন ‘ইরাকে মার্কিন হামলার প্রতিবাদে বাংলাদেশের অগ্রগণ্য সাংবাদিক ও লেখক সৈয়দ আবুল মকসুদ সেলাই করা কাপড় বর্জন করেন। এটা এই অঞ্চলের মানুষের ঐতিহ্য—বিদেশিরা এই অঞ্চলে আসার আগে আমরা সেলাইবিহীন কাপড় পরতাম। ধুতি আর শাড়ি। ব্লাউজ ছিল না। লুঙ্গিতেও সেলাই ছিল না। ঠাকুরবাড়ি শাড়ির সঙ্গে পরার জন্য ব্লাউজ, পেটিকোট ইত্যাদির প্রচলন করে। 

ইরাকে গণবিধ্বংসী অস্ত্র আছে এই মিথ্যা অজুহাতে মার্কিনরা হামলা চালায় এবং পুরো পৃথিবীটাকে অশান্ত করে তোলে, সৃষ্টি করে লাখ লাখ মানুষের মৃত্যু ও কোটি মানুষের বেদনার কারণ। তারই প্রতিবাদে সৈয়দ আবুল মকসুদ দুই খণ্ড সেলাই-ছাড়া সাদা চাদর পরা শুরু করেন। তিনি এখনো সেই ব্রত পালন করে চলেছেন।’