মেট্রোরেলের সঙ্গে সম্মিলিতভাবে কাজ করবে ডিএনসিসি

সংগ্রহীত

মেট্রোরেলের সঙ্গে সম্মিলিতভাবে কাজ করবে ডিএনসিসি

মিরপুর ১০ নম্বর এলাকা থেকে শেওড়াপাড়া পর্যন্ত সড়কে জলাবদ্ধতা নিরসনে মেট্রোরেল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে এখন থেকে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন (ডিএনসিসি) সম্মিলিতভাবে কাজ করবে। আর প্রধান সড়কের নিচে থাকা ড্রেন পরিষ্কারে নিজস্ব অর্থায়নে দরপত্র আহ্বান করেছে ডিএনসিসি।

মঙ্গলবার (২৯ জুন) ওই এলাকার কাজীপাড়া, শেওড়াপাড়া পরিদর্শনে এসে এসব কথা বলেন ডিএনসিসি মেয়র আতিকুল ইসলাম।

আতিক বলেন, আপনারা জানেন দীর্ঘদিন ধরে মিরপুর ১০ থেকে শেওড়াপাড়া সড়কের কি অবস্থা। আর এটাও জানেন যে, এই সড়কে মেট্রোরেল হচ্ছে। নিয়ম হচ্ছে, যখন কোথাও এ ধরনের কোনো কাজ হয় তখন সেই সড়কে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে দেওয়া হয়। তেমনি এই সড়ক মেট্রোরেল কর্তৃপক্ষের কাছে দেওয়া হয়েছিল। শর্ত ছিল, তারা এখানকার কমপ্লায়েন্স নিশ্চিত করবে। যেমন সড়কের পাশের ফুটপাত চলাচলের উপযোগী রাখবেন, ফুটপাতের নিচের ড্রেন নিয়মিত সংস্কার করবেন। আর প্রধান সড়কের নিচে থাকা মাস্টার ড্রেন দেখবে ওয়াসা। কিন্তু তাদের মেয়াদ শেষ হলেও কাজ হয়েছে অর্ধেক।

আতিক বলেন, সিদ্ধান্ত হয়েছে এখন থেকে এসব সড়কে যাই করতে হবে তার জন্য আমাদের সঙ্গে অর্থাৎ সিটি করপোরেশনের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে করতে হবে। মেট্রোরেল এবং আমরা সম্মিলিতভাবে কাজ করব। আর ওয়াসা যে কাজ বাকি রেখেছে তার জন্য আমরা বসে নেই। ইতোমধ্যে সিটি কর্পোরেশনের নিজস্ব অর্থায়নে ৩৬ কোটি টাকার টেন্ডার আহ্বান করা হয়েছে।

কমপ্লায়েন্স ইস্যুতে মেট্রোরেল কর্তৃপক্ষ শর্ত ভঙ্গ করেছে বলেও মনে করেন আতিক।

তিনি বলেন, শর্ত যেমন আছে যে তাদেরকে কমপ্লায়েন্স নিশ্চিত করতে হবে সেই হিসেবে তারা শর্ত ভঙ্গ করেছে। উপরে মেট্রোরেল আর নিচে এই অবস্থা যেন উপরে ফিটফাট নিচে সদরঘাট। তবে এমনটা আর হতে দেওয়া যাবে না। এখন থেকে তারা যে কাজই করবেন আমাদের সঙ্গে আলোচনা করে করতে হবে।

পরিদর্শনকালে মেট্রোরেল প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক আফসার উদ্দিন তালুকদারসহ সিটি কর্পোরেশনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।