রাজনীতিকে সৌরভ গাঙ্গুলীর ”না”

সংগ্রহীত

রাজনীতিকে সৌরভ গাঙ্গুলীর ”না”

পশ্চিমবঙ্গের আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির মুখ হতে যাচ্ছেন, তাকে নিয়ে এমন গুঞ্জন ডালপালা মেলার আগেই ছেঁটে দিলেন সৌরভ গাঙ্গুলী।

জানিয়ে দিলেন, রাতারাতি কোনো নাটকীয় পরিবর্তন না হলে আপাতত রাজনীতির পিচে ব্যাট করার আগ্রহ নেই প্রিন্স অব ক্যালকাটার।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ‘আনন্দবাজার’- এর এক রিপোর্টে এমনটাই জানানো হয়েছে।  

আগামী ৭ মার্চ ব্রিগেডে জনসভা করবেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। সেই জনসভায় সৌরভ গাঙ্গুলীর উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে। সেখানেই আনুষ্ঠানিকভাবে বিজেপিতে যোগ দেবেন ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ড (বিসিসিআই) এর বর্তমান প্রেসিডেন্ট, এমনটাই শোনা যাচ্ছিল।  

কিন্তু এখন জানা গেল, সেই জল্পনা আপাতত বাস্তবে রূপ পাওয়ার সম্ভাবনা নেই। সূত্রের বরাত দিয়ে ‘আনন্দবাজার’ দাবি করেছে, রাজনীতিতে যোগ না দেওয়ার সিদ্ধান্তের কথা এরইমধ্যে বিজেপির হাইকমান্ডকে জানিয়েও দিয়েছেন সৌরভ। তবে এখনও এ ব্যাপারে সাবেক ভারতীয় অধিনায়ক সরাসরি কিছু বলছেন না।  

মূলত বিসিসিআই এর প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকেই সৌরভের রাজনৈতিক ইনিংস শুরুর জল্পনা তৈরি হয়। কারণ বোর্ডের সচিব পদে যোগ দেন ক্ষমতাসীন বিজেপির সাবেক সভাপতি ও দেশটির কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহর ছেলে জয় শাহ। শাহ পরিবারের সঙ্গে সৌরভের ঘনিষ্ঠতা নিয়েও জোর চর্চা শুরু হয়।  

সৌরভ গাঙ্গুলীকে পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির মুখ করার চেষ্টা আগেও হয়েছিল। এ নিয়ে দলটির শীর্ষ নেতৃত্ব বেশ কয়েকবার তার সঙ্গে কথা বলেছেন। এমনকি পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনে দাদা বনাম দিদি (বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়)- এমন দ্বৈরথের কথাও শোনা যাচ্ছিল।

সৌরভ নিজেও নাকি এক পর্যায়ে রাজনীতিতে আসতে চেয়েছিলেন। কিন্তু ক্রিকেট আর রাজনীতি যে এক নয় তা উপলব্ধি করে পিছিয়ে আসেন। এরপর আচমকা হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার পর পরিস্থিতি আরও পাল্টে যায়। শারীরিক অবস্থার কথা ভেবেই আপাতত রাজনীতিকে ‘না’ বলে দেন তিনি।