রিয়াদ-তাসকিনের ব্যাটে রান পাহাড়ে বাংলাদেশ

সংগ্রহীত

রিয়াদ-তাসকিনের ব্যাটে রান পাহাড়ে বাংলাদেশ

আগের দিন টপ অর্ডারের ব্যর্থতার পর ঘুরে দাঁড়িয়েছিল বাংলাদেশের মিডল অর্ডার। আর দ্বিতীয় দিনে দলীয় সংগ্রহটাকে বিশাল আকার দিচ্ছে লোয়ার মিডল অর্ডার।

হারারে টেস্টের দ্বিতীয় দিনের প্রথম সেশন শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৮ উইকেট হারিয়ে ৪০৪ রান। এর মধ্যে রিয়াদ ও তাসকিনের জুটিতে এসেছে ১৩৪ রান। আর দিনের প্রথম সেশনে আসে ১১০ রান।

দ্বিতীয় দিনে বাংলাদেশের রানের চাকা সচল রাখার মূল কৃতিত্ব রিয়াদের। দীর্ঘদিন পর টেস্ট ক্রিকেটে ফেরা এই মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান এরইমধ্যে নিজের ৫০তম ম্যাচে দেখা পেয়েছেন পঞ্চম সেঞ্চুরির। ১৯৫ বল খেলে ১১টি চার ও ১টি ছক্কায় ইনিংসটি সাজিয়েছেন তিনি।

মাহমুদউল্লাহর পাশে পার্শ্ব-নায়কের ভূমিকায় দেখা দিয়েছেন লোয়ার মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান তাসকিন আহমেদ। মূলত পেসার হলেও ব্যাট হাতে দুর্দান্ত সব শট খেলে তিনি তুলে নিয়েছেন টেস্ট ক্যারিয়ারের প্রথম ফিফটি, তাও মাত্র ৬৯ বলে। আছে ৮টি চারের মার। অবশ্য ব্যক্তিগত ৩৪ রানে একবার দ্বিতীয় স্লিপে ক্যাচ তুলে দিয়ে বেঁচে যান তিনি।

শুধু ব্যাট হাতে না, জিম্বাবুয়ের পেসারদের চোখে চোখ রেখে জবাবও দিচ্ছেন তাসকিন। বিশেষ করে জিম্বাবুয়ের ফাস্ট বোলার ব্লেসিং মুজারাবানির সঙ্গে তার মুখোমুখি উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় বেশ নজর কেড়েছে।

এর আগে গতকাল বুধবার হারারে স্পোর্টস ক্লাব গ্রাউন্ডে অনুষ্ঠিত টেস্টের প্রথম দিনে বাংলাদেশ ৮ উইকেটে ২৯৪ রান তোলে। ৫৪ রানে অপরাজিত ছিলেন ‘সাইলেন্ট কিলার’ মাহমুদউল্লাহ। আর তাসকিন অপরাজিত ছিলেন ১৩ রানে।

প্রথম দিনে সেরা স্কোরার ছিলেন লিটন দাস। দুঃখজনকভাবে ক্যারিয়ারের প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরি থেকে ৫ রান দূরে থাকতে তিনি আউট হয়ে যান। লিটনের ১৪৭ বলে ১৩ চারে ৯৫ রানের ইনিংস থামে ডোনাল্ড ত্রিপানোর বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়েছে।

টেস্ট অধিনায়ক মুমিনুল হকও তিন অংকের মোটামুটি কাছে চলে গিয়েছিলেন। তিনিও ৯২ বলে ৭০ রান করেন। বাউন্ডারি মারেন ১৩টি। এছাড়া সাইফ (০), সাদমান (২৩), শান্ত (২), মুশফিক (১১), সাকিব (৩), মিরাজ (০)- কেউই মাথা তুলে দাঁড়াতে পারেননি।

প্রথম দিনের শেষদিকে ক্যারিয়ারের টেস্ট ফিফটি তুলে নেন মাহমুদউল্লাহ। আর দ্বিতীয় দিনে পেলেন তিন অংকের দেখাও।