সবচেয়ে বেশি পুষ্টিগুণে ভরপুর খাবার

সবচেয়ে বেশি পুষ্টিগুণে ভরপুর খাবার
অপার বাংলা ডেস্কঃ কোনো একটি খাবারের পুষ্টিগুণ যতই থাকুক না কেন, তা কখনই সব চাহিদা মেটাতে পারে না। কিন্তু কোনো খাবারে অন্যগুলোর তুলনায় বেশি পুষ্টিগুণ রয়েছে, তা জানার জন্য মানুষের আগ্রহের শেষ নেই।
কোন খাবারটি সবচেয়ে বেশি পুষ্টিগুণে ভরপুর ও ভারসাম্যপূর্ণ তা জনতে হাজারেরও বেশি কাঁচা খাবার নিয়ে গবেষণা করেন গবেষকরা। তবে সে গবেষণার পূর্ণাঙ্গ ফল পাওয়া যায়নি এখনো। আপাতত এ তালিকার ওপরে থাকা ৫টি খাবারের কথা জানিয়েছেন তারা।
কাজুবাদাম : কাজুবাদামের পুষ্টিগুণের কথা বলে শেষ করা যাবে না। আর এ কারণে এটি গবেষকদের সেরা খাবারের তালিকার শীর্ষে স্থান পেয়েছে। এতে রয়েছে উপকারী মনো-আনস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড। পুষ্টিগুণ ছাড়াও এটি ডায়াবেটিসের মতো নানা স্বাস্থ্য সমস্যা প্রতিরোধে যথেষ্ট কার্যকর।
চেরিময়া : চেরিময়া নামে ফলটি আমেরিকান। তবে বাংলাদেশের আতা ফলের মতোই দেখতে এ ফল। আতা বাংলাদেশ ও ভারতে এটি বসতবাড়ির আঙিনায় এবং বনে-জঙ্গলে জন্মে থাকে। তবে থাইল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এর বাণিজ্যিক চাষাবাদ হয়ে থাকে। এতে প্রচুর পরিমাণে আমিষ ও শর্করা জাতীয় খাদ্য উপাদান রয়েছে। অপুষ্টিজনিত সমস্যা দূর করতেও এটি কার্যকর।
ওসেন পার্চ : আটলান্টিক মহাসাগরে বাস করে এ মাছ। গভীর সাগরের এ মাছটিকে অনেকেই রকফিশ বলেন। তবে এ মাছ প্রচুর প্রোটিন ও কম স্যাচুরেটেড ফ্যাটের জন্য উদাহরণীয়।
ফ্ল্যাটফিশ : অনেকটা রুপচাঁদা মাছের মতো দেখতে এ ফ্ল্যাটফিশ। আর খেতেও মন্দ নয়। এটি ভিটামিন বি১-সহ বহু পুষ্টিকর উপাদানে ভরপুর। এ কারণে গবেষকরাও বলছেন এ মাছটি বিশ্বের সবচেয়ে পুষ্টিকর মাছের একটি।
তোকমা : ছোট কালো বীজ তোকমা। পানি দিয়ে ভিজিয়ে শরবত বানিয়ে পান করা যায়। আয়ুর্বেদিক চিকিৎসায়ও তোকমা বীজ অন্যতম একটি উপাদান। এটি স্থানভেদে সবজা বীজ, মিষ্টি বাসিল, ফালুদা বীজ কিংবা তুর্কমারিয়া বীজ হিসেবে পরিচিত।
গবেষকরা বলছেন, বহু গুণ রয়েছে বীজটির। এতে ডায়েটারি ফাইবার, প্রোটিন, নানা ভিটামিন ও দেহের জন্য উপকারী এসিড রয়েছে।