সিনোফার্মের সঙ্গে টিকার চুক্তিই হয়নি বাংলাদেশের: চীনা উপরাষ্ট্রদূত

সংগ্রহীত

সিনোফার্মের সঙ্গে টিকার চুক্তিই হয়নি বাংলাদেশের: চীনা উপরাষ্ট্রদূত

চীনের উপহারের পরবর্তী ৬ লাখ ডোজ সিনোফার্মের টিকা আসার কথা আগামী ১৩ জুন। তবে টিকা কেনার বিষয়ে চীনের সঙ্গে বাংলাদেশের কোনো চুক্তিই হয়নি বলে দাবি করেছেন ঢাকায় নিযুক্ত চীনের উপরাষ্ট্রদূত হুয়ালং ইয়ান। শনিবার (০৫ জুন) নিজের ফেসবুকে দুটি পোস্টে এসব তথ্য দিয়েছেন তিনি।

প্রথম পোস্টে চীনের উপরাষ্ট্রদূত লিখেছেন, গণমাধ্যমের খবর সঠিক হলে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে বারবার ভুয়া তথ্য দেওয়ার বিষয়টি বিস্ময়ের সৃষ্টি করে। তিনি আরও লিখেছেন, প্রথমত, আজ পর্যন্ত টিকা কেনার বিষয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে সিনোফার্মের কোনো চুক্তিই হয়নি। দ্বিতীয়ত, টিকা কেনার বিষয়ে আলাপ-আলোচনা চীনের সরকারের সঙ্গে হচ্ছে না। এটা বাংলাদেশ ও সিনোফার্মের মধ্যে একটি বাণিজ্যিক আলোচনার বিষয়। অবশ্য তিনি আশা প্রকাশ করেন, বাংলাদেশি ‘ভাইবোনেরা’ আগের নির্ধারিত তারিখেই প্রয়োজনীয় টিকা পাবেন।

এরপর আরেকটি পোস্ট দেন চীনের উপরাষ্ট্রদূত। সেখানে তিনি লিখেছেন, চীন সরকারের পক্ষ থেকে উপহারের ৬ লাখ ডোজ টিকা আগামী ১৩ জুনের মধ্যে ঢাকায় আসবে। এর আগে চীনের উপহার হিসেবে দেওয়া ৫ লাখ ডোজ টিকা দেশে এসেছে।

এদিকে চীনা উপরাষ্ট্রদূতের বক্তব্যের ব্যাপারে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, চীন সরকারের সঙ্গে টিকা কেনার ব্যাপারে কোনো চুক্তি হচ্ছে না। কেনাকাটার ব্যাপারে আলোচনা হচ্ছে চীনের কোম্পানি সিনোফার্মের সঙ্গে- এটা ঠিক। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাজ হচ্ছে চীন সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ করে তাদের কোম্পানি যেন বাংলাদেশে টিকা বিক্রি করে, সেই ব্যবস্থা করা। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সেই কাজটা করে দিয়েছে। এখন কীভাবে টিকা কেনা হবে, কত টাকায় কেনা হবে তা ঠিক করা এবং চুক্তি করার দায়িত্ব স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের। অতএব চুক্তি হয়েছে কী হয়নি- তা শুধু স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ই বলতে পারবে।

কয়েক দিন আগে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব শাহিদা আক্তার সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন, প্রতি ডোজ ১০ মার্কিন ডলার দাম ধরে দেড় কোটি ডোজ টিকা কেনার বিষয়ে চায়না ন্যাশনাল ফার্মাসিউটিক্যাল গ্রুপ-সিনোফার্মের সঙ্গে চুক্তি হয়েছে। তার বক্তব্য নিয়ে বিতর্কের সৃষ্টি হয়।