সুনামগঞ্জে টিসিবির পণ্য বিক্রি শুরু, অনিয়ম করলেই ব্যবস্থা

সুনামগঞ্জে টিসিবির পণ্য বিক্রি শুরু, অনিয়ম করলেই ব্যবস্থা
সুনামগঞ্জে টিসিবির পণ্য বিক্রি শুরু হয়েছে। রোববার (২০ মার্চ) সকালে সদর উপজেলার লক্ষণশ্রী ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে পণ্য বিক্রির উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক মো. জাহাঙ্গীর হোসেন।
এ সময় জেলা প্রশাসক বলেন, জেলার ১১টি উপজেলার ২৬টি বিক্রয়কেন্দ্রের মাধ্যমে ভর্তুকিমূল্যে টিসিবির পণ্য বিতরণ করা হবে। জেলার ১ লাখ ১৪ হাজার ৯১০ পরিবার টিসিবির মাল পাবেন। রোববার ১৪ হাজার মানুষ এই পণ্য পাবেন। ভিজিডি ও অতিদরিদ্র এবং করোনাকালীন সহযোগিতাপ্রাপ্তদের নাম যাচাই-বাছাই করে তালিকা তৈরি করা হয়েছে। তাতেও যদি কোনো অসংগতি থাকে, তাহলে তা আবার ঠিক করা হবে এবং যারা তালিকা তৈরিতে অনিয়ম করবে, তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
লক্ষণশ্রী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল ওয়াদুদ বলেন, এলাকায় গরিব মানুষের সংখ্যা বেশি কার্ডের পরিমাণ বাড়ানো হলে আরও বেশিসংখ্যক মানুষ পণ্য পেতেন। পণ্য বিক্রয়কালে জেলা প্রশাসক আগতের পণ্য ক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলেন তালিকা প্রণয়নে কোনো অনিয়ম হয়েছে কি না, জানতে চান।

এ সময় তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর উদ্যোগে বাজারদরের চেয়ে কম দামে সরকার নিম্ন আয়ের মানুষের মধ্য পণ্য বিক্রি করা হচ্ছে। রমজান মাস পর্যন্ত এটি চালু থাকবে। ৩০ মার্চের মধ্যে দুবার পণ্য বিক্রি করা হবে। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনায় আসন্ন পবিত্র রমজান উপলক্ষ্যে সমগ্র বাংলাদেশে নিম্ন আয়ের প্রায় ১ কোটি পরিবারের মধ্যে টিসিবির পণ্যসামগ্রী পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যে সুনামগঞ্জ জেলায় জেলা প্রশাসনের তত্ত্বাবধানে ১ লাখ ১৪ হাজার ৯১০টি পরিবারের তালিকা প্রস্তুত করা হয়। তার মধ্যে সুনামগঞ্জ জেলার উপজেলাসমূহে নতুন উপকারভোগী হলেন ৬১ হাজার ৮৫৬ জন।

এ ছাড়া তিনি জানান, সোমবার সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার লক্ষণশ্রী ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে ও নীলপুর বাজারে, শান্তিগঞ্জ উপজেলার জয়কলস ইউনিয়নের শান্তিগঞ্জ ও নোয়াখালী বাজার এবং দরগাপাশা ইউনিয়নের কমবনি, আক্তাপাড়া ছাতক উপজেলার জাউয়াবাজার ও গোবিন্দগঞ্জ বাজার, দোয়ারাবাজার উপজেলার বাংলাবাজার ইউনিয়নের বাংলাবাজার ও হকনগর বাজারে ও মান্নারগাঁও ইউনিয়নের আমবাড়ি ও কাটাখালী বাজার, বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার ফতেহপুর ইউনিয়নে তাহিরপুর উপজেলার তাহিরপুর বাজার ও মধ্য বাজারে দিরাই উপজেলার করিমপুর ইউনিয়নের চান্দপুরে ও রফিনগর ইউনিয়নের বাংলাবাজারে, শাল্লা উপজেলার বাহারা ইউনিয়নের ঘুঙ্গিয়ারগাঁও জগন্নাথপুর উপজেলার রানিগঞ্জ ইউনিয়নের রানিগঞ্জ স্কুল মাঠে জামালগঞ্জ উপজেলার বেহেলী ইউনিয়নের বেহেলী বাজারে ও ফেনারবাক ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে ধর্মপাশা উপজেলার সদর ইউনিয়নের ধর্মপাশা ও মহদীপুর বাজারে মোট ২৬টি স্থানে ডিলাররা পণ্য বিক্রয় করবেন। তালিকাভুক্ত উপকারভোগী উপস্থিত না হওয়ার কারণে পণ্য অবিক্রীত থাকলে ট্যাগ টিমের প্রত্যয়নসাপেক্ষে স্পটে উপস্থিত নিম্ন আয়ের মানুষের মাঝে ডিলাররা পণ্য বিক্রয় করতে পারবে।

প্রথম ধাপে ৩০ মার্চের মধ্যে ডিলারদের মাধ্যমে পর্যায়ক্রমে তালিকাভুক্ত উপকারভোগীদের কাছে প্রথম ধাপের পণ্য বিক্রয় কার্যক্রম চলবে। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন সদর উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান নিগার সুলতানা কেয়া, সহকারী কমিশনার শাহরিয়ার আশরাফ, ট্যাগ অফিসার উত্তম কুমার রায়।