সুড়ঙ্গে ঢুকে ১০৬ জন নিয়ে উধাও ট্রেন, খোঁজ মেলেনি ১১০ বছরেও

সুড়ঙ্গে ঢুকে ১০৬ জন নিয়ে উধাও ট্রেন, খোঁজ মেলেনি ১১০ বছরেও

ঘটনার প্রথম অংশ শুনেই মনে হতে পারে কোন বানানো বা রহস্যজনক গল্প। আসলেই এটি গল্প কিন্তু বানানো বা মিথ্যা নয় সত্যি ঘটনা। ১৯১১ সালের এই ঘটনার সাক্ষী ইটালি। ঠিক ১১০ বছর আগে ইটালির জেনেটি নামে একটি রেল সংস্থা বেশ ধুমধাম করে নতুন ওই ট্রেনের যাত্রা শুরু করেছিল।

উদ্বোধনের দিন বিনা টিকিটে ১০০ জন যাত্রী ও ৬ জন রেলকর্মীকে নিয়ে রওনা দিয়েছিল ট্রেনটি। কিন্তু দূর্ভাগ্য ট্রেনটি আর গন্তব্যে পৌঁছায়নি। রসহ্যজনকভাবে পথেই গায়েব হয়ে যায় ট্রেনটি। যার খোঁজ আজ পর্যন্ত মেলেনি।

ট্রেনে থাকা সেই ১০৬ জন মানুষেরও খোঁজ মেলেনি। এতোগুলো মানুষ নিয়ে কিভাবে আন্ত একটি ট্রেন গায়েব হয়ে যেতে পারে যার কারণ অনুসন্ধান করতে পারেনি বিজ্ঞানীরা। শোনা যায়, অনেক খুঁজেও ট্রেনের কোনও চিহ্ন পর্যন্ত পাওয়া যায়নি।

ওই ট্রেন যেদিক দিয়ে যাচ্ছিল সেই পথেই ছিল একটি সুড়ঙ্গ। ট্রেন সেই সুড়ঙ্গে তো প্রবেশ করেছিল কিন্তু আর বের হয়নি। পরবর্তীকালে ট্রেনের সন্ধানে সুড়ঙ্গের মধ্যে অনেকেই গিয়েছেন। কিন্তু তন্ন তন্ন করে খুঁজেও তার চিহ্ন পাওয়া যায়নি।

পাহাড়ের বুক চিরে তৈরি হওয়া ওই সুড়ঙ্গের ভিতর আর কোনও রাস্তাও ছিল না। ট্রেন দুর্ঘটনারও কোনও চিহ্ন মেলেনি।

ট্রেনের মধ্যে মোট ১০৬ জন ছিলেন। তাঁদের মধ্যে দু’জনের সন্ধান পরবর্তীকালে পাওয়া গিয়েছিল। সুড়ঙ্গের বাইরে থেকে তাঁদের উদ্ধার করা হয়েছিল। সেই সময় প্রকাশিত খবর অনুয়ায়ী, অগোছালো কথা বলছিলেন তাঁরা। ওই ঘটনা সম্বন্ধে বিশদে সে ভাবে কিছুই জানাতে পারেননি তাঁরা।

দু’জনের কথার বিষয়বস্তু ছিল একই। সুড়ঙ্গে প্রবেশের মুহূর্তে সাদা ধোঁয়া গ্রাস করেছিল ট্রেনটিকে। সেই সময় নাকি কোনওক্রমে দু’জনে ট্রেন থেকে ঝাঁপ দেন। তার পর আর কিছু মনে ছিল না তাঁদের।

 

মেক্সিকোর এক চিকিৎসক দাবি করেন, অনেক বছর আগে মেক্সিকোর একটি হাসপাতালে নাকি ওই ১০৬ জন যাত্রীকে ভর্তি করা হয়েছিল। তাঁরা প্রত্যেকেই অসংলগ্ন কথা বলছিলেন। প্রত্যেকেই কোনও একটি ট্রেনের উল্লেখ করেছিলেন। সেই ট্রেনে করেই নাকি তাঁরা মেক্সিকো পৌঁছেছিলেন।

এমনকি ইটালির বিভিন্ন প্রান্তে, জার্মানি, রোমানিয়া এবং রাশিয়াতেও নাকি বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন মানুষ ঠিক ওই রকমই একটি যাত্রিবোঝাই ট্রেন দেখতে পেয়েছেন বলে দাবি করতে শুরু করেছিলেন। প্রত্যক্ষদর্শীরা ট্রেনের যে বর্ণনা দিয়েছিলেন তা হুবহু ওই অদৃশ্য হওয়া ট্রেনটির মতো ছিল। সেই সময় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী ট্রেনটি নাকি টাইম ট্রাভেল করে ১৮৪০ সালের মেক্সিকোয় পৌঁছে গিয়েছিল। সূত্র: আনন্দবাজার