স্ত্রী শ্বশুরবাড়িতে, ফেসবুক লাইভে যুবকের বিষপান

স্ত্রী শ্বশুরবাড়িতে, ফেসবুক লাইভে যুবকের বিষপান

রংপুরের পীরগাছায় চাচা শ্বশুরবাড়ি থেকে স্ত্রীকে আনতে না পেরে ফেসবুক লাইভে গিয়ে বিষপানে আত্মহত্যা করেছেন ইমরোজ হোসেন রনি (৩০) নামে এক যুবক। আত্মহত্যার জন্য তিনি স্ত্রী, শ্বশুর, চাচা শ্বশুর ও ভায়রা এমদাদুল হককে দায়ী করেছেন।

গত শনিবার সকালে রনি বিষপান করে। পরে রোববার সকালে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

জানা গেছে, ইমরোজ হোসেন রনি (৩০) ৪ বছর আগে ভালোবেসে বিয়ে করেন পার্শ্ববর্তী পশ্চিম হাগুরিয়া হাসিম গ্রামের দিনমজুর বাদল মিয়ার মেয়ে শামীমা ইয়াসমিন সাথীকে। তাদের ঘরে আবু শাকিব রিশাদ নামে দুই বছরের একটি সন্তানও রয়েছে। কিছু দিন থেকে রনির কাছে দেনমোহরের ৫ লাখ টাকা ও নিজের বাবা-মায়ের ভরণ-পোষণ দাবি করে আসছিলেন তার স্ত্রী। এ নিয়ে কাউকে কিছু না বলে গত বুধবার পার্শ্ববর্তী রতনপুর গ্রামের চাচা মুকুল মিয়ার বাড়িতে চলে যান স্ত্রী সাথী। শনিবার সকালে তাকে আনতে গিয়ে ব্যর্থ হয়ে ফেসবুক লাইভে আসেন ইমরোজ হোসেন রনি।

লাইভে তিনি বলেন, আমার স্ত্রী আমাকে না বলে তিন দিন আগে তার চাচা মুকুল মিয়ার বাড়িতে চলে যায়। আমি আনতে গেলে আমার কাছে দেনমোহরের ৫ লাখ টাকা দাবি করা হয়। আমি এখন ফেসবুক লাইভে এসে বিষপানে আত্মহত্যা করব। আমার মৃত্যুর জন্য আমার স্ত্রী, শ্বশুর, চাচা শ্বশুর ও ভায়রা এমদাদুল হক দায়ী। এ বলে একটি সাদা বোতলের মুখ খুলে বিষপান করেন রনি। এসময় তার সাথে এক কিশোরকে দেখা যায়। কিন্তু তার পরিচয় জানা যায়নি।

পীরগাছা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সরেস চন্দ্র বলেন, ওই যুবক রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা গেছে। লাশ ময়নাতদন্ত করে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। তবে ফেসবুক লাইভে এসে আত্মহত্যার কথা জানি না। খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে।