হবিগঞ্জে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ৫১ ঘর তলিয়ে যাওয়ার আশঙ্কা

হবিগঞ্জে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ৫১ ঘর তলিয়ে যাওয়ার আশঙ্কা

হবিগঞ্জের আজমিরীগঞ্জে কাকাইলছে এলাকায় কুশিয়ারা নদীর তীরে তৈরি হওয়া আশ্রয়ণ প্রকল্প তলিয়ে যাওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। আর এক ফুট পানি বাড়লেই জলাবদ্ধ হয়ে পড়বেন প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘরের বাসিন্দারা।

সরেজমিনে দেখা গেছে, জলমগ্ন কুশিয়ারা নদী থেকে প্রায় ১০০ ফুট দূরে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ৫১টি ঘরের চারদিকে পানি এসেছে। দু’টি সারিতে থাকা ঘরগুলোর মাঝখানের উঠানে পানি উঠে রান্নার চুলা ও টিউবওয়েলের নিচের অংশ তলিয়ে গেছে। দু’দিকের রাস্তাগুলোও জলের নিচে। ফলে প্রকল্পের বাসিন্দারা এখন পানিবন্দি।

স্থানীয়রা জানান, কাকাইলছে ইউনিয়নের নিচু মাঠে আশ্রয়ণ প্রকল্পর ৫১টি ঘর নির্মাণ করা হয়েছে। মাঠটি কুশিয়ারা নদীর তীর ঘেঁষা। বর্ষায় বেশি পানি হলে শুরুর দিকেই এ মাঠ তলিয়ে যায়। কয়েকদিন ধরে বৃষ্টিপাতে ঘরগুলোর চারদিকে পানি উঠেছে। প্রতিদিনই প্রায় এক ফুট পানি বাড়ছে। এরইমধ্যে কুশিয়ারা নদীর তীর ডুবে গেছে। আর একদিন পানি বাড়া অব্যাহত থাকলে ঘরের মেঝে তলিয়ে যাবে।

প্রকল্পের বাসিন্দা রেশমা আক্তার বাংলানিউজকে বলেন, আমার ঘরসহ আরও কয়েকটি ঘরের মেঝেতে নিচ থেকে পানি উঠছে। ঘরের চারদিকেও পানি। হাওরের মাঝখানে হওয়ায় বিষধর সাপের আসার আশঙ্কায় রাতে কেউ ঠিক মতো ঘুমাতেও পারি না। এ বিষয়ে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় কয়েকজন জানান, মুজিববর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘরগুলো নির্মাণের সময় পানি উঠে যাওয়ার আশঙ্কা প্রকাশ করেছিলেন তারা। কিন্তু
উপজেলা প্রশাসন এ বিষয়টি আমলে নেয়নি। এজন্য প্রতি বছরই বর্ষায় উপকারভোগীদের দুর্ভোগে পড়তে হবে।

এদিকে, সোমবার (৩০ আগস্ট) আশ্রয়ণ প্রকল্প পরিদর্শন করেছেন আজমিরীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সুলতানা সালেহা সুমীসহ কর্মকর্তারা। বাসিন্দাদের যেকোনো সমস্যায় পাশে থাকার আশ্বাসও দিয়েছেন তারা।